বর্জন নয়, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত নির্বাচনে থাকব: রিজভী|113248|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৫:০৩
বর্জন নয়, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত নির্বাচনে থাকব: রিজভী
নিজস্ব প্রতিবেদক

বর্জন নয়, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত নির্বাচনে থাকব: রিজভী

ফাইল ছবি

গণতন্ত্রের স্বার্থে বর্জন না করে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বিএনপি নির্বাচনে থাকবে বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ।

বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপি নির্বাচন বর্জন করতে পারে- এমন গুঞ্জনের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে রিজভী বলেন, ‘না, আমরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত নির্বাচনে থাকব।’

‘এর আগে আপনরা দেখেছেন- স্থানীয় সরকার নির্বাচনেও কী পরিস্থিতি তৈরি করা হয়েছিল, আমরা (শেষ পর্যন্ত) ছিলাম। গণতন্ত্রের জন্য যতটুকু পারব, আঁকড়ে ধরব। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকব’ যোগ করেন তিনি।

এসময় বিএনপির এই মুখপাত্র অভিযোগ করে বলেন, ‘সরকার প্রধান প্রতিহিংসার বশবর্তী বেগম জিয়াকে কারাবন্দী করে রেখেছেন। প্রতি মূহূর্তে তার উপর জুলুমের নিদর্শন দেখলেই সেটি স্পষ্ট বোঝা যায়।’

তিনি বলেন, প্রতিটি কারাবন্দীর সাত দিন পর পর নিকটজনদের সাক্ষাতের বিধানের নিয়ম ভেঙে সরকার বেগম জিয়াকে সাক্ষাতের অনুমতি দিয়েছে ১৫ দিন পর পর। এটিও বেগম জিয়াকে মানসিকভাবে নির্যাতনের একটি পন্থা।

রিজভী বলেন, ‘গত ২১ ডিসেম্বর সাক্ষাতের ১৫ দিন পার হয়ে গেলেও নিকটাত্মীয়দের তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে দেওয়া হয়নি। দেশনেত্রীর সঙ্গে তার আত্মীয়-স্বজনকে দেখা করতে না দেওয়ার এই অমানবিক, ঘৃণ্য আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘আবারও নির্বাচনের প্রাক্কালে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বানানো গল্প ফাঁদতে ব্যবহার করা হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে। অবশ্যই ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনকে ঘিরে নানামুখী চক্রান্তজালের এটি একটি অংশ। তবে কলঙ্ক লেপনের জন্য মিথ্যা অপপ্রচার জনগণের সঙ্গে মশকরা করারই শামিল।’

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, “আজকের সমকালসহ অন্যান্য পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে- ‘দুবাই থেকে আসা কালো টাকা ভোটের মাঠে’ নামক একটি উদ্ভট ও অভিনব প্রতিবেদন।”

‘সংবাদপত্রে প্রকাশিত ঘটনায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নাম ও র‌্যাবের অভিযানে ধানের শীষের প্রার্থী মিয়া নুরউদ্দিন অপুকে জড়িয়ে যে কাল্পনিক কাহিনী রচিত হয়েছে, তা বুঝতে আর কারো বাকি নেই’ যোগ করেন তিনি।

এ সময় রিজভী আরও বলেন, ‘গত ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণার পর হতে ২৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৮,২৪৩ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গায়েবি ও মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে ৭৭৩টি। এসময় ২,৬৯৩টি হামলার ঘটনায় চারজন নিহত ও ১২,৩৫৩ জন আহত হয়েছেন।’