মায়ের চিৎকারে জাগল সন্তান|113329|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
মায়ের চিৎকারে জাগল সন্তান
রূপান্তর ডেস্ক

মায়ের চিৎকারে জাগল সন্তান

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসা কিশোর জন স্মিথ। মিসৌরির লেক সেইন্ট লুইজে বরফের ওপর হকি খেলার সময় তলিয়ে গিয়েছিলেন। টানা পনেরো মিনিট তীব্র ঠাণ্ডা পানির মধ্যে ডুবন্ত অবস্থায় থাকার পর উদ্ধারকারীরা তাকে উদ্ধার করেন। উদ্ধারকারীরা স্মিথের নিথর দেহ পানি থেকে তোলার পর মৃত ঘোষণা করেন। একটুও শ্বাস নিচ্ছিলেন না স্মিথ। হাসপাতালের কার্ডিওপালমোনারি রিসাসিটেশন কেয়ারে এক ঘণ্টা থাকার পরেও তার হৃদস্পন্দন পাওয়া যায়নি।

ডাক্তাররা স্মিথের বেঁচে থাকার সব সম্ভাবনা বাতিল করে দিলেন। ডাক্তাররা স্মিথকে দত্তক নেওয়া মাকে ডাক দিলেন তার মৃত্যুর সংবাদ জানানোর জন্য। সন্তানের মৃত্যুর সংবাদ শুনে হঠাৎ করেই বেশ উচ্চৈঃস্বরে কেঁদে উঠে সৃষ্টিকর্তাকে ডাকলেন প্রিয় সন্তানকে মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরিয়ে দিতে। তার গলার শব্দ হাসপাতালের লবিতে মিলিয়ে যাওয়ার আগেই সবাইকে অবাক করে সাড়া দেন স্মিথ। ডাক্তাররা অবাক হয়ে দেখলেন স্মিথের হৃদস্পন্দন ফিরে এসেছে। বিস্ময়কর এই ঘটনা ২০১৫ সালের ১৯ জানুয়ারির। তার মা জয়েস স্মিথ এই ঘটনা নিয়ে ‘দ্য ইম্পসিবল : দ্য মিরাকুলাস স্টোরি অব এ মাদার’স ফেইথ অ্যান্ড হার চাইল্ডস রিজারেকশন’ নামে একটি বই লেখেন। বইটি নিয়ে হলিউডের এক রিপোর্টারের সঙ্গে কথা হয় জয়েসের। ওই সাংবাদিকের হাত ধরে স্মিথের জীবনে ঘটে যাওয়া ঘটনা ছড়িয়ে যায়। বহু মানুষ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা শুরু করেন। দেশের বাইরে ফিলিপাইন, জার্মানি এবং সুইডেন থেকেও মানুষ স্মিথ পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এক পর্যায়ে হলিউডের এক বিখ্যাত নির্মাতা এই সত্য ঘটনা অবলম্বনে তৈরি করেন ‘ব্রেকথ্রু’ নামের একটি চলচ্চিত্র। আগামী বছরের ইস্টার ডে’তে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাবে। সূত্র: ডেইলি মেইল