logo
আপডেট : ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
বছর ঘুরে নাট্যাঙ্গন
পাভেল রহমান

বছর ঘুরে নাট্যাঙ্গন

বছরজুড়ে বাংলাদেশের নাট্যাঙ্গন ছিল উৎসবমুখর। নিয়মিত নাটকের মঞ্চায়নের পাশাপাশি এসেছে অর্ধশতাধিক নতুন নাটক। ছিল বিভিন্ন নাট্যদলের বর্ষপূর্তি উৎসব। বছরের উল্লেখযোগ্য ঘটনার মধ্যে রয়েছে প্রথমবার থিয়েটার অলিম্পিকে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ। ভারতে অনুষ্ঠিতব্য অষ্টম থিয়েটার অলিম্পিকে বাংলাদেশের ৯টি নাটক মঞ্চায়িত হয়। এছাড়া মঞ্চে আসে ৫০টিরও বেশি নতুন নাটক।

২০১৮ নিয়েই সাজানো হয়েছে এই প্রতিবেদন। লিখেছেন পাভেল রহমান

থিয়েটার অলিম্পিকে বাংলাদেশের নাটক

বিশ্ব নাটকের সবচেয়ে বড় আসর থিয়েটার অলিম্পিক। ১৯৯৩ সালে প্রথমবার থিয়েটার অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হয় গ্রিসে। এরপর জাপান, রাশিয়া, তুরস্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, পোলান্ড হয়ে ৮ম থিয়েটার অলিম্পিকের আসর বসে ভারতে। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৮ এপ্রিল ভারতের ১৭টি শহরে এই উৎসব হয়। এতে বিশ্বের ৪৫০টি নাটকের ৭০০টি প্রদর্শনী হয়। অংশ নেন প্রায় ২৫ হাজার শিল্পী। নাটকের প্রদর্শনী ছাড়াও থিয়েটারের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, উন্মুক্ত পপ্রদর্শনী ও প্রশ্নোত্তর পর্বের আয়োজন ছিল। এই আয়োজনে মঞ্চায়িত হয় বাংলাদেশের ৯টি নাটক। এর মধ্যে রয়েছে- থিয়েটার আর্ট ইউনিটের ‘মর্ষকাম’, থিয়েটারের (নাটক সরণি) ‘বারামখানা’, ফেইমের ‘ক্যালিগুলা’, বিবর্তনের (যশোর) ‘মাতব্রিং’, সুবচন নাট্য সংসদের ‘মহাজনের নাও’, প্রাচ্যনাটের ‘কিনু কাহারের থেটার’, প্রাঙ্গণেমোরের ‘ঈর্ষা’, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থিয়েটার অ্যান্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের ‘পাঁজরে চন্দ্রবান’, নৃত্যাঞ্চলের ‘রাই-কৃষ্ণ পদাবলী’।

বছরজুড়ে নতুন নাটক

বছরজুড়ে সারা দেশে ৫০টিরও বেশি নতুন নাটক মঞ্চে এসেছে। এছাড়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগ তাদের পরীক্ষা প্রযোজনা হিসেবেও বেশ কিছু প্রযোজনা মঞ্চে এনেছে। ২০১৮ সালে মঞ্চে আসা উল্লেখযোগ্য নতুন নাটকের মধ্যে রয়েছে- অনুরাগ থিয়েটারের ‘গ্রাস’, প্রাচ্যনাট স্কুল অব অ্যাক্টিং অ্যান্ড ডিজাইনের দুই নাটক ‘নৈশভোজ’ ও ‘রাজরক্ত’, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের প্রযোজনা ‘দ্য অ্যালকেমিস্ট’, প্রাঙ্গণেমোর প্রযোজনা ‘হাছনজানের রাজা’, হৃৎমঞ্চ প্রযোজনা ‘রুধিররঙ্গিণী’, নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের নাটক ‘ওপেন কাপল’, নান্দীমুখ নাট্যদলের ‘আমার আমি’, ঢাকা পদাতিকের ‘ট্রায়াল অব সূর্য সেন’, জাহাঙ্গীরনগর থিয়েটারের ‘মানুষ’, কথা ও কাহিনী প্রযোজনা ‘নিখোঁজ সংবাদ’, সিরাজগঞ্জের অন্যতম নাট্যদল ‘নাট্যলোক’ মঞ্চে এনেছে ‘রূপসুন্দরী’, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের দুই প্রযোজনা ‘পাঁজরে চন্দ্রবান’ ও ‘দ্য লোয়ার ডেপথস’, নাট্যধারা প্রযোজনা ‘চার্লি’, থিয়েটার (আরামবাগ) মঞ্চে এনেছে ‘দ্রৌপদী পরম্পরা’ পালাকার প্রযোজনা ‘উজানে মৃত্যু’, আরশিনগর প্রযোজনা ‘রহু চ-ালের হাড়’, বরিশাল শব্দাবলী শিশু থিয়েটার প্রযোজনা ‘আওয়ার কিংডম’, ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক ড্রামা ক্লাব মঞ্চে আনে ‘সুবর্ণ গোলক’, মহাকাল নাট্য সম্প্রদায় প্রযোজনা ‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’, বাতিঘর প্রযোজনা ‘র‌্যাডক্লিফ লাইন’, ত্রিশালের কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের নাটক ‘সীতায়ন’ সংস্কার নাট্যদলের দুই নাটক ভুল স্বর্গ ও মহাপতঙ্গ, থিয়েটার স্কুলের ‘ডাকঘর’, থিয়েটার বায়ান্ন’র নাটক ‘ঋত্বিক’, যাত্রিক প্রযোজনা ‘অ্যান ইন্সপেক্টর কলস’, বরিশাল শব্দাবলীর ‘বৈশাখিনী’, নটনন্দনের ‘নারী ও রাক্ষুসী’, লোক নাট্যদল (বনানী) প্রযোজনা ‘ঠিকানা’, ঢাকা থিয়েটারের ‘পুত্র’, ঢাকা থিয়েটার মঞ্চ প্রযোজনা ‘বহিপীর’, রাজশাহীর অনুশীলন নাট্যদলের ‘বুদেরামের কূপে পড়া’, অ্যাভাগার্ডের নবান্ন, নাট্যম রেপার্টরি প্রযোজনা ‘ডিয়ার লায়ার’, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নাটক ‘মহাস্থান’ এবং উদীচীর যাত্রাপালা ‘বিয়াল্লিশের বিপ্লব’।

বিদেশে বাংলাদেশের নাটক

থিয়েটার অলিম্পিক ছাড়াও বাংলাদেশের বেশ কিছু নাটক ২০১৮ সালে বিদেশের মঞ্চে গৌরব বয়ে এনেছে। এর মধ্যে- দক্ষিণ কোরিয়ায় মঞ্চায়িত হয় মেঠোপথ থিয়েটারের নাটক ‘অতঃপর মাধো’ এবং শূন্যন রেপার্টরির নাটক ‘লাল জমিন’। জাপানে মঞ্চায়িত হয় স্বপ্নদলের ‘ত্রিংশ শতাব্দী’। লন্ডনে মঞ্চায়িত হয় নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের নাটক ‘ওপেন কাপল’ এবং নটনন্দনের ‘নারী ও রাক্ষুসী’। এছাড়া ভারতে বাংলাদেশের বেশ কিছু নাটকের ৫০টিরও বেশি প্রদর্শনী হয়েছে।

নাট্যনির্দেশকদের নতুন সংগঠন

 দেশের মঞ্চনাটকের নাট্যনির্দেশকদের নিয়ে গত ২০ জুলাই ‘থিয়েটার ডিরেক্টরস ইউনিটি’ নামের নতুন একটি সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে। এই সংগঠনের নাম ঘোষণা করেন নাট্যব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন ইউসুফ। অনন্ত হিরাকে সমন্বয়কারী করে সাত সদস্যের একটি কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন মলয় ভৌমিক, আহমেদ ইকবাল হায়দার, ফয়েজ জহির, ইশরাত নিশাত, আজাদ আবুল কালাম ও মোহাম্মদ বারী।

টিকটের বিনিময়ে আড্ডা

এই আয়োজনটি অন্যরকম ছিল। গত ৫ অক্টোবর নাট্যজন মামুনুর রশীদ ও নাসিরউদ্দীন ইউসুফকে নিয়ে দর্শনীর বিনিময়ে একটি আড্ডা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ‘থিয়েটার ডিরেক্টরস ইউনিটি’। মহিলা সমিতিতে সেই আয়োজনটিতে ছিল নাট্যকর্মীদের উপচেপড়া ভিড়। কেউ কেউ সিট না পেয়ে দাঁড়িয়েও অনুষ্ঠানটি উপভোগ করেন।