কোমর ব্যথা কেন হয়?|113931|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
কোমর ব্যথা কেন হয়?
রূপান্তর ডেস্ক

কোমর ব্যথা কেন হয়?

জীবনে কখনো কোমর ব্যথায় ভোগেননি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া একটু মুশকিলই হবে। প্রায় সব বয়সের মানুষই কমবেশি কোমর ব্যথায় ভুগে থাকেন। অনেকেই মনে করেন কোমর ব্যথা মানেই কিডনির রোগ। আসলে তা নয়। সেটা কিডনি রোগের একটি উপসর্গ মাত্র। কোমর ব্যথা বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে।

আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রায়ই কোমর ব্যথার সমস্যায় ভুগে থাকি। এ কোমর ব্যথা বিভিন্ন রোগী উপস্থাপন করেন ভিন্ন ভিন্নভাবে।

কিছু রোগী জানান তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ ভুগছেন কোমর ব্যথায়। আবার কারো ব্যথা কোমর থেকে এক পায়ে নেমে আসে সেই সঙ্গে ঝিরঝির, শিনশিন অনুভূত হয়।

আবার কেউ কয়েক পা হাঁটার পর আর হাঁটতে পারেন না। দুই পা অবশ হয়ে আসে। তখন হাঁটা বন্ধ করে তাকে বসে পড়তে হয়। অনেকের রাতে ঘুমানোর সময় বা ঘুম থেকে উঠে পায়ে তীব্র ব্যথা অনুভূত হয়। ঘুম থেকে উঠে তিনি ফ্লোরে পা ফেলতে পারেন না।

আরো বিভিন্নভাবে রোগীর একজন ফিজিক্যাল মেডিসিন ও রিহ্যাবিলিটেশন বিশেষজ্ঞের কাছে তার সমস্যার কথা উপস্থাপন করেন। অর্থাৎ কোমর ব্যথায় আক্রান্ত রোগীদের অসুবিধার প্রকাশ ভিন্ন ভিন্ন। তার অর্থ সব কোমর ব্যথাই এক নয় এবং এর কারণগুলোও ভিন্ন ভিন্ন।

কেন হয় কোমর ব্যথা

দীর্ঘ সময় ধরে একই জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকার কারণে কোমর ব্যথা হতে পারে। আবার অনেকক্ষণ যাবৎ একই জায়গায় মনে করুন বসে আছেন। কিন্তু আপনার বসার ভঙ্গিমা ঠিকমতো হয়নি। সে কারণেও কোমর ব্যথা হয়।

কোনো ভারী জিনিস বা ওজন বহন করলে।

কোমরে আঘাত পেলে।

স্থুলতার কারণে।

বয়সজনিত কারণে মেরুদন্ডের ক্ষয় হলে।

গেঁটে বাত।

হাড়ের ঘনত্ব কমে গিয়ে হাড় দুর্বল ও ভঙ্গুর হয়ে গেলে।

করণীয়

প্রাথমিকভাবে কিছু জিনিস মেনে চললে ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় কিছুটা। যেমন : শক্ত বিছানায় শোয়া, হাইহিল না পরা, মেরুদ- সোজা করে বসা, চেয়ারে বসে নামাজ পড়া, ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা, কমোড ব্যবহার করা, সামনের দিকে ঝুঁকে কাজ না করা, চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যয়াম করা ইত্যাদি।

যারা দীর্ঘদিন যাবৎ কোমর ব্যথায় ভুগছেন তারা অবশ্যই কারণ নির্ণয় পূর্বক সঠিক চিকিৎসা সেবা পাওয়ার জন্য ফিজিক্যাল মেডিসিন ও রিহ্যাবিলিটেশন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ গ্রহণ করুন। অনেকেই কোমর ব্যথা হলে বিভিন্ন ব্যথানাশক ওষুধ খেয়ে ফেলেন যা একেবারেই ঠিক নয়। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ গ্রহণ করা একেবারেই অনুচিত। ব্যথার সঠিক কারণ নির্ণয় করে সেই মোতাবেক উপযুক্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা গ্রহণ করলেই এ সমস্যা থেকে ভালো থাকা যায়। সম্পাদনা: লায়লা আরজুমান্দ