পটিয়া-বাঁশখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ৩|114057|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৫:৫৪
পটিয়া-বাঁশখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ৩
চট্টগ্রাম ব্যুরো

পটিয়া-বাঁশখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ৩

ভোটকেন্দ্রে সহিংসতায় কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে চট্টগ্রামের পটিয়ায় প্রাণ গেল আরও একজনের। এনিয়ে পটিয়ায় নিহত হলো দুজন। দুপক্ষের সংঘর্ষে একজনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে বাঁশখালীতেও।

রোববার সকাল সোয়া ১০টার দিকে পটিয়ার পশ্চিম মালিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষে একজন নিহত হন। নিহত আবু সাদেক (১৮) দক্ষিণ মালিয়ারা গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের পটিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন খান জানান, কেন্দ্র দখল করতে গিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধলে আবু সাদেক নিহত হন। এরপর ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ সাময়িকভাবে স্থগিত ছিল। পরে আবার ভোটগ্রহণ শুরু হয়। এখন পরিস্থিতি শান্ত আছে।

তবে আবু সাদেক গুলিতে না কি অন্য কিছুর আঘাতে মারা গেছেন তা জানাতে পারেননি পুলিশ কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন খান।

চট্টগ্রাম-১২ পটিয়া আসনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার হাবিবুল হাসান বলেন, দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় একজন মারা গেছেন। সেখানে গুলি ছোড়ার ঘটনাও ঘটেছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, নিহত আবু সাদেক বিএনপির সমর্থক।

এর আগে শনিবার রাতে পটিয়ার গুরনখাইন এলাকায় বিএনপি কর্মীদের হামলায় যুবলীগ কর্মী দ্বীন মোহাম্মদ নিহত হন। এর কয়েক ঘণ্টা পরই আবু সাদেক মারা গেলেন।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের উপজেলা পটিয়া নিয়েই চট্টগ্রাম-১২ আসন। এখানে মূল লড়াই নৌকা ও ধানের শীষে। এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরী এবং বিএনপির প্রার্থী নতুন মুখ ব্যবসায়ী নেতা এনামুল হক এনাম।

এদিকে, চট্টগ্রামের চট্টগ্রামের বাশঁখালীতে ভোট শুরুর আগে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহমদ কবির (৪৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

রোববার ভোরে সদর পৌরসভার বড়ইতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আহমদ কবির কাথারিয়া ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা বলে জানিয়েছে পুলিশ।

রাতে জামায়াতের নেতাকর্মীরা ভোটকেন্দ্র দখল করতে গেলে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা বাধা দিতে গেলেই দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ নিতে গেলে ত্রিমুখী সংঘাত হয় এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহমদ কবির মারা গেছেন বলে জানান চট্টগ্রাম জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আফরুজুল হক টুটুল। তিনি বলেন, নিহতের রাজনৈতিক পরিচয় জানা যায়নি।

চট্টগ্রামের ১৬ (বাঁশখালী) আসনটি সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় ছিল। এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী এবং ধানের শীষের প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য জাফরুল ইসলাম চৌধুরী। জাতীয় পার্টির সাবেক  সংসদ সদস্য ও সাবেক সিটি মেয়র মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াত নেতা জহিরুল ইসলামও লড়ছেন এই আসনে।