ভোট শেষে চূড়ান্ত ফল ঘোষণার অপেক্ষা|114145|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০
ভোট শেষে চূড়ান্ত ফল ঘোষণার অপেক্ষা

ভোট শেষে চূড়ান্ত ফল ঘোষণার অপেক্ষা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৯৯ আসনে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। বিচ্ছিন্ন সহিংসতার ঘটনা ছাড়া ভোটের দিনটি ছিল শান্তিপূর্ণ। সারা দেশে সহিংসতায় ১৬ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। কিছু স্থানে ভোট কারচুপি এবং ভোট দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ক্ষমতার বাইরে থাকা জোট ও দলগুলোর পক্ষ থেকে।

নানা অভিযোগে নির্বাচন চলাকালে ৬০ জনের মতো প্রার্থী ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। এর মধ্যে দলীয়ভাবে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত দল জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ। নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন হারানো দলটির প্রার্থীরা এবার বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। বিএনপির পক্ষ থেকে শতকরা ২০ শতাংশ ভোটকেন্দ্র দখলের অভিযোগ করা হয়েছে। অবশ্য সরকারদলীয় প্রার্থীরা কোথাও ভোট কারচুপির অভিযোগ আনেননি।

প্রাথমিকভাবে কমপক্ষে ৫৫ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছেন বলে নির্বাচনী কর্মকর্তারা গতকাল সন্ধ্যায় জানিয়েছেন। কিন্তু সারা দেশে সংবাদদাতারা ভোটার উপস্থিতির যে খবর দিয়েছেন তাতে এত ভোট পড়েছে কি না তা বলা মুশকিল। এদিকে, ভোট গণনা শুরুর পর প্রাথমিক ফলাফলে যে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে তাতে ক্ষমতাসীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একচেটিয়া বিজয়ের আভাস মিলেছে।

একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত করার প্রধান দায়িত্ব বর্তায় নির্বাচন কমিশনের ওপর। এই প্রতিষ্ঠানের প্রতি জনগণের প্রত্যাশা অনেক। কিন্তু নির্বাচন নিয়ে এত অভিযোগ উঠেছে যে জনগণের প্রত্যাশা পূরণে তারা সফল কি না সে প্রশ্ন উঠতে পারে। এই প্রেক্ষাপটে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে অন্য এক কমিশনারের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্য হওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করার মতো। নির্বাচন আয়োজনে কমিশন কতটুকু দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে তার একটা চিত্র ভোটের দিনে সারা দেশে দেখা গেছে।

রাজনৈতিক সরকারের অধীনে পৃথিবীর অনেক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রেই ভালো নির্বাচন হয়। এ অবস্থায় দেশে নির্বাচনী ব্যবস্থাপনার বিষয়টি আরো আলোচনা-পর্যালোচনার দাবি রাখে। বলা যেতে পারে নির্বাচনী ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা আনতে নির্বাচন কমিশনকে আরো শক্তিশালী করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে।

জয় পরাজয় যাই হোক ফল মেনে নিয়ে দেশের বৃহত্তর স্বার্থে কাজ করে যাওয়াই সব রাজনৈতিক দলের দায়িত্ব। নির্বাচনে জয় পেয়ে যে জনপ্রতিনিধিরা জাতীয় সংসদে আসছেন তাদের সবাইকে আগাম শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। এ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে গঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ আগামী দিনের বাংলাদেশ গড়ে তোলায় দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবে এটাই জাতির প্রত্যাশা।