ম খা আলমগীরের প্রায় দুই লাখ ভোট, ধানের শীষের মাত্র ৭ হাজার|114201|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০২:০২
চাঁদপুরের ৫টি আসনে নৌকা মার্কার জয়
ম খা আলমগীরের প্রায় দুই লাখ ভোট, ধানের শীষের মাত্র ৭ হাজার
চাঁদপুর প্রতিনিধি

ম খা আলমগীরের প্রায় দুই লাখ ভোট, ধানের শীষের মাত্র ৭ হাজার

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুরের ৫টি আসনেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিপুল ভোটে জয় লাভ করেছেন। রোববার ভোট গণনা শেষে স্ব স্ব আসনের সহকারী রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় থেকে এসব তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

চাঁদপুর-১ (কচুয়া উপজেলা) আসনে মোট ১০৮টি কেন্দ্রে ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ লাখ ৯৬ হাজার ৮শ’ ৪৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী মো. মোশারফ হোসেন ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৭ হাজার ৭শ’ ৫৯ ভোট।

চাঁদপুর-২ (মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিণ উপজেলা) আসনে মোট ১৫৪টি কেন্দ্রে ভোটাররা ভোট দেন। এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. নুরুল আমিন নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৩ লাখ এক হাজার ৫০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী ড. জালাল উদ্দিন ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ১০ হাজার ২৭৭ ভোট।

চাঁদপুর-৩ (সদর ও হাইমচর উপজেলা) আসনে মোট ১৫৭টি কেন্দ্রে ভোটাররা ভোট দেন। এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. দীপু মনি নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৩ লাখ ৪ হাজার ৮শ’ ১২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী শেখ ফরিদ আহম্মেদ ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৩৫ হাজার ৫০১ ভোট।

চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ উপজেলা) আসনে মোট ১১৮টি কেন্দ্রে ভোটাররা ভোট দেয়। এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাতীয় প্রেসক্লাব সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী মো. হারুনুর রশিদ ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৩০ হাজার ৭৯৯ ভোট।

চাঁদপুর-৫ (শাহরাস্তি ও হাজীগঞ্জ উপজেলা) আসনে মোট ১৪১টি কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন ভোটাররা। এর মধ্যে একটি কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত রয়েছে। ১৪০টি কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৩ লাখ এক হাজার ৬৪৮ ভোট।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৩৭ হাজার ১৯৫ ভোট। হাজীগঞ্জ দক্ষিণ বড়কুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যালট বাক্স ছিনতাই হয়ে যাওয়ায় এ কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত রাখা হয়।