নির্বাচনী সহিংসতায় পুড়ল প্রাথমিক বিদ্যালয়টি |114273|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৫:৩৫
নির্বাচনী সহিংসতায় পুড়ল প্রাথমিক বিদ্যালয়টি
দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

নির্বাচনী সহিংসতায় পুড়ল প্রাথমিক বিদ্যালয়টি

শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিলের পোড়া গন্ধ এখনো ভেসে বেড়াচ্ছে বাতাসে। সফলতার সনদগুলোর পোড়া ছাই দৃশ্যমান। বিদ্যালয়টি যেন এক ভুতুড়ে বাড়ি। কালো ধোঁয়া চার দেয়ালে লেগে আছে। চেয়ার-টেবিল আলমারি পুড়ে এলোপাতাড়ি পড়ে আছে। রাম দার কোপে ক্ষতবিক্ষত টিনের বেড়া।

সোমবার সরেজমিন পরিদর্শনে এমন চিত্র দেখা গেছে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার চন্দ্রশেখরদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের । নির্বাচনী সহিংসতার তাণ্ডবে এমন পরিণতির শিকার হতে হয়েছে বিদ্যালয়টিকে। দুর্বৃত্তের দেয়া আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে অর্ধশত বছরের সকল নথিপত্র।

জানা গেছে, রোববার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার বিটেশ্বর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ভোট গ্রহণের কেন্দ্র করা ওই ওয়ার্ডের চন্দ্রশেখরদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বেলা ১১টায় কেন্দ্র দখলকে কেন্দ্র করে দু'গ্রুপের সংঘর্ষ শুরু হয়। এমন সময় দুর্বৃত্তের ছোড়া পেট্রোলবোমার আগুনে বিদ্যালয়টির নিচের টিনের ঘরে আগুন লেগে যায়।

বিদ্যালয়ের অফিসকক্ষ ও শ্রেণিকক্ষসহ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নমিতা রানী ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ উল্লেখ করে সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লিখিত আকারে জানিয়েছেন। 

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. নুরে আলম বলেন, ‘গতকালের সহিংসতায় আমাদের বিদ্যালয়ের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। অফিস কক্ষসহ ৪টি শ্রেণিকক্ষ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তার মধ্যে- বিদ্যালয়ের সকল নথিপত্র, শিক্ষার্থীদের সনদ, ৫২ জোড়া ব্রেঞ্চ, ১০টি টেবিল, ৫টি আলমারি ও ফ্যানসহ বিদ্যালয়ের টিনের চাল ক্ষতি হয়।

বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. ইকবাল হোসেন মল্লিক বলেন, ‘আমাদের এলাকাটি কৃষিনির্ভর। কৃষকদের সন্তানরাই এই বিদ্যালয়টি লেখাপড়া করে। গতকাল নির্বাচনী সহিংসতায় আমাদের বিদ্যালয়টির ব্যাপক ক্ষতি হয়। আমরা আপনাদের মাধ্যমে সরকারের কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ, বিদ্যালয়টি মেরামত করে পুনরায় শিক্ষার পরিবেশ যাতে ফিরে আসে।