যাদের হারাল সংস্কৃতি অঙ্গন|114317|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০
ফিরে দেখা ২০১৮
যাদের হারাল সংস্কৃতি অঙ্গন
রূপান্তর ডেস্ক

যাদের হারাল সংস্কৃতি অঙ্গন

গত ডিসেম্বর মাসেই পরপর পাঁচ গুণী ব্যক্তিত্ব পাড়ি জমালেন না ফেরার দেশে। ২০১৮ সালে আমরা হারিয়েছি দেশের প্রথিতযশা বেশ ক’জন গুণী মানুষকে। এর মধ্যে সংস্কৃতি অঙ্গন যাদের হারিয়েছে তাদের শ্রদ্ধা জানিয়ে সাজানো হলো এই প্রতিবেদন। গ্রন্থনা করেছেন পাভেল রহমান।

শাম্মী আখতার : গত ১৬ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী শাম্মী আখতার। প্রায় ৬ বছর ধরে তিনি স্তন ক্যানসারে ভুগছিলেন। পরদিন তাকে রাজধানীর শাহজাহানপুর কবরস্থানে দাফন করা হয়।

ফেরদৌসী প্রিয়ভাষিণী : গত ৬ মার্চ ৭১ বছর বয়সে না ফেরার দেশে চলে যান মুক্তিযোদ্ধা ও ভাস্কর ফেরদৌসী প্রিয়ভাষিণী। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি পাকিস্তানি বাহিনীর নৃশংসতার শিকার হন। ২০১৬ সালে সরকার তাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

জাতীয় অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম : বিশিষ্ট লেখক, গবেষক, ভাষাসৈনিক ও জাতীয় অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম গত ৯ মে মৃত্যুবরণ করেন। তার বয়স হয়েছিল ৯১ বছর। তিনি একুশে পদক, স্বাধীনতা পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননা অর্জন করেছেন।

রাণী সরকার : সত্তর দশকের জনপ্রিয় অভিনেত্রী রাণী সরকার গত ৭ জুলাই মারা যান। বেশ ক’দিন তিনি রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

রমা চৌধুরী : গত ৩ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান রমা চৌধুরী। বেশ কিছুদিন ধরেই তিনি অসুস্থ ছিলেন। মৃত্যুর আগে হাসপাতালে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। ‘একাত্তরের জননী’সহ ১৮টি গ্রন্থের রচয়িতা তিনি। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি পাকিস্তানি বাহিনীর নৃশংসতার শিকার হন।

আইয়ুব বাচ্চু : দেশের ব্যান্ডসঙ্গীতের নন্দিত তারকা আইয়ুব বাচ্চু গত ১৮ অক্টোবর মারা যান। দু’দিন পর চট্টগ্রামে মায়ের কবরের পাশে তাকে সমাহিত করা হয়। দেশের ব্যান্ডসঙ্গীতকে যারা সব শ্রেণির মানুষের কাছে জনপ্রিয় করে তুলেছেন তাদের মধ্যে আইয়ুব বাচ্চু অন্যতম।

রণজিৎ রক্ষিত : বরেণ্য আবৃত্তিশিল্পী রণজিৎ রক্ষিত মারা যান গত ৩০ অক্টোবর। তিনি চট্টগ্রামের সংস্কৃতি অঙ্গনের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব।

তারামন বিবি : বীরপ্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা তারামন বিবি গত ৩০ নভেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় ১১ নম্বর সেক্টরে মুক্তিবাহিনীর জন্য রান্না, তাদের অস্ত্র লুকিয়ে রাখা এবং পাকিস্তানি বাহিনীর খবর সংগ্রহের কাজ করতেন তারামন বিবি। তিনি সম্মুখযুদ্ধেও অংশ নেন। ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে বীরপ্রতীক খেতাবে ভূষিত করে।

আনোয়ার হোসেন : প্রখ্যাত চিত্রগ্রাহক আনোয়ার হোসেন গত ১ ডিসেম্বর মারা যান। রাজধানীর একটি আবাসিক হোটেল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।  তিনি দীর্ঘদিন ধরে ফ্রান্সে বসবাস করছিলেন। ৩ ডিসেম্বর তাকে মিরপুরের বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

অশোক সেনগুপ্ত : প্রখ্যাত গণসঙ্গীতশিল্পী অশোক সেনগুপ্ত গত ৫ ডিসেম্বর ৬৯ বছর বয়সে কলকাতার একটি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। চট্টগ্রামের অন্যতম এই সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব চার শতাধিক গান লিখেছেন, সুর করেছেন এবং গেয়েছেন।

মঞ্জুর হোসেন : গত ৭ ডিসেম্বর ৮১ বছর বয়সে মারা যান প্রবীণ চলচ্চিত্র অভিনেতা মঞ্জুর হোসেন। ৯ ডিসেম্বর তাকে রাজধানীর জুরাইন কবরস্থানে দাফন করা হয়। অভিনয়ের পাশাপাশি সিনেমা পরিচালনা ও প্রযোজনার সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন তিনি।

আমজাদ হোসেন : বরেণ্য অভিনেতা-নির্মাতা ও লেখক আমজাদ হোসেন গত ১৪ ডিসেম্বর ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। এর আগে ১৮ নভেম্বর নিজ বাসায় ব্রেন স্ট্রোক হয় তার। ওইদিনই তাকে তেজগাঁওয়ের ইমপালস হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আর্থিক সহযোগিতায় ২৭ নভেম্বর ব্যাংককে পাঠানো হয় তাকে। সেখানে ১৪ ডিসেম্বর তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

সাইদুল আনাম টুটুল : দেশের নাটক ও চলচ্চিত্রের গুণী নির্মাতা সাইদুল আনাম টুটুল গত ১৮ ডিসেম্বর চলে যান না ফেরার দেশে। ২০ ডিসেম্বর মিরপুরের বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

মোহাম্মদ ইদ্রিস : ৮৭ বছর বয়সে গত ২২ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন জাতীয় প্রতীক শাপলার নকশাকার মোহাম্মদ ইদ্রিস। তিনি দেশের ডাক বিভাগের প্রথম খামেরও নকশাকার।