logo
আপডেট : ১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০
শপথ নেবে না বিএনপি
নিজস্ব প্রতিবেদক

শপথ নেবে না বিএনপি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত বিএনপির সংসদ সদস্যরা শপথ নেবেন না বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল সোমবার বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান তিনি।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পুরো ফলই প্রত্যাখ্যান করেছে। তাই শপথগ্রহণের প্রশ্নই আসে না। ফ্রন্ট নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে, জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে।’

তিনি আরো বলেন, ‘পুরো রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে সুপরিকল্পিত একটি নির্বাচন হয়েছে। এ নির্বাচন অত্যন্ত কলঙ্কজনক। তাই এই নির্বাচন অবিলম্বে বাতিল করে পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছি, সে নির্বাচন হতে হবে নির্দলীয় সরকারের অধীনে।’ এ নির্বাচনে বিদেশি পর্যবেক্ষক প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র থেকে কোনো পর্যবেক্ষক আসেননি। যারা এসেছেন, তারা সরকারের পেইড এজেন্ট। বিদেশি পর্যবেক্ষক আসার বিষয়টি আওয়ামী লীগের আইওয়াশ। ভারতের যে কজন এসেছেন তারা পর্যবেক্ষক হিসেবে নয়, সরকারের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এসেছেন।’

এর আগে স্থায়ী কমিটির বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. মঈন খান, ড. খন্দকার মোশাররফ, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এবং আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। পরে ২০ দলীয় জোট নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান।

এদিকে, স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনের পর বিএনপি মহাসচিব চলে যান মতিঝিলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে। বৈঠকে হওয়া আলোচনার বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলাপ করে শপথ নেওয়ার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। স্থায়ী কমিটির কোনো কোনো সদস্য কয়েক দিন বিরতি দিয়ে আন্দোলন সংগ্রামের কর্মসূচি দেওয়ার বিষয়ে মতামত দিয়েছেন।’ তিনি আরো জানান, বৈঠকে স্থায়ী কমিটির এক সদস্য নির্বাচনের আগে কয়েকদিন ধরে ফোন না ধরার জন্য বিএনপি মহাসচিবের সমালোচনা করেন। ফোন না ধরার বিষয়টি ভালোভাবে নেননি বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে, গতকাল রাতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামালের মতিঝিলের আইনি চেম্বারে বৈঠক করেন ফ্রন্টের নেতারা। এতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্ট্রি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী প্রমুখ। বৈঠক শেষে ফ্রন্টের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমকে কিছু জানানো হয়নি।