ভোটের কারণে পর্যটক নেই কুয়াকাটা সৈকতে|114410|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০
ভোটের কারণে পর্যটক নেই কুয়াকাটা সৈকতে
জাহিদুল ইসলাম, পটুয়াখালী

ভোটের কারণে পর্যটক নেই কুয়াকাটা সৈকতে

নির্বাচনী উত্তাপে উচ্ছ্বাসহীন সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের বেলাভূমি কুয়াকাটা সৈকত। প্রতিবছরের মতো এবারও থার্টি ফার্স্ট উদ্যাপনকে ঘিরে পর্যটনসংশ্লিষ্টরা নানা উদ্যোগ নিলেও পর্যটকদের আশানুরূপ উপস্থিতি না থাকায় হতাশ তারা। ফলে অনেকটাই বিবর্ণ এবারের থার্টি ফার্স্ট উৎসব।

প্রতিবার এই উদ্যাপনকে কেন্দ্র করে সাগরকন্যা কুয়াকাটায় আগমন ঘটে হাজারো পর্যটকের। এসব পর্যটকের বিনোদনে নানা উদ্যোগ নেন হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনসহ পর্যটন ব্যবসায়ীরা। বর্ণিল হয়ে ওঠে ১৮ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সৈকত। এক মাস আগেই বুকিং হয়ে যায় হোটেল-মেটেল-কটেজ। কিন্তু এ বছরের চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই কুয়াকাটায় কমতে থাকে পর্যটকের উপস্থিতি। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের কিছু পর্যটকের উপস্থিতিতে থাকলেও হতাশ সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি শাহ আলম জানান, থার্টি ফার্স্ট উপলক্ষে পর্যটকদের সেবা দিতে হোটেল-মোটেল সুসজ্জিত করা হয়েছে। পর্যটকের উপস্থিতি কম থাকলেও গতকাল সোমবার থেকে পর্যটকের সংখ্যা বাড়ছে। খুলনা থেকে আসা পর্যটক সাময়া জামান সুইটি দেশ রূপান্তরকে জানান, ‘বিগত কয়েক বছর ধরে পরিবারের সবাই  বছরের শেষ সূর্যোদয়কে বিদায় জানাতে এবং নতুন বছরের হিমেল শীতের সূর্যোদয়ে সিক্ত হতে এখানে আসি। কুয়াকাটার প্রাকৃতিক রূপবৈচিত্র্য আমাদের বেশ মুগ্ধ করে।’

কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশের ওসি খলিলুল রহমান জানান, নির্বাচনের কারণে আমাদের ফোর্সের স্বল্পতা রয়েছে। তার পরও পর্যটকদের নিদ্রি নিরাপত্তায় কাজ করছি।