গো-রক্ষায় জনগণের ওপর করারোপ করছে ভারত|114638|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৬:১৫
গো-রক্ষায় জনগণের ওপর করারোপ করছে ভারত
অনলাইন ডেস্ক

গো-রক্ষায় জনগণের ওপর করারোপ করছে ভারত

রাজ্যজুড়ে গরুর জন্য সরকারিভাবে আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন ভারতের উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। তবে গরু রক্ষণাবেক্ষণের খরচ জোগাবে রাজ্যবাসীই। এজন্য ‘গরু কল্যাণ’ কর আদায় করা হবে।

সরকারি সূত্রে এনডিটিভি জানায়, এখনো করের অর্থ কী পরিমাণ হবে সেটা নির্ধারণ হয়নি।

তবে গ্রামে গ্রামে গরু রক্ষণাবেক্ষণে সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে রাজ্যবাসী থেকে কর আদায় করা হবে। এই করের অর্থ দিয়েই গড়ে তোলা হবে গরু আশ্রয়কেন্দ্র।

সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বেপরোয়া হয়ে ওঠা গরুদের নিয়ন্ত্রণের জন্য সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের পশ্চিমাঞ্চলে বিক্ষোভ শুরু হয়। ফলে গো-রক্ষার জন্য গ্রামে গ্রামে এই আশ্রয়কেন্দ্র খোলার সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য সরকার।

গত সপ্তাহে আলিগড় এবং ফিরোজাবাদ জেলার দুই গ্রামের মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে কিছু বেপরোয়া গরুকে একটি সরকারি স্কুলে আটকে রাখে। রাজ্য সরকার কোনো ব্যবস্থা না নিলে তাদের ছাড়া হবে না বলে ঘোষণা দেয় তারা। এমনকি সব ধরনের ধর্মীয় কর্মকাণ্ড থেকেও বিরত থাকার হুমকি দেয় স্থানীয়রা।

আলিগড় পুলিশ প্রধান এ কে সানি জানান, সরকার ইতোমধ্যে এ সমস্যার সমাধান করেছে। আলিগড়জুড়ে গরু আশ্রয়কেন্দ্র গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়ে গেছে। এ সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট নীতিমালাও তৈরি হয়ে গেছে। গরু রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতি থানাতে একজন পুলিশ কর্মকর্তা দায়িত্বে থাকবেন।’

প্রসঙ্গত, হিন্দুত্ববাদী বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী আদিত্যনাথ ক্ষমতা নেওয়ার পর পরই গরু পাচার এবং অনুমোদিত কসাইখানার ওপর কঠোরতা দেখান। ফলে স্থানীয় অধিবাসীরা বয়স্ক সব গরু রাস্তায় ছেড়ে দিচ্ছেন। মালিকানা হারানো এসব গরু এখন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।