বাঘাবাড়িতে কাঠের পাটাতন ভেঙে ১০ শ্রমিক আহত|114643|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৭:১৯
বাঘাবাড়িতে কাঠের পাটাতন ভেঙে ১০ শ্রমিক আহত
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

বাঘাবাড়িতে কাঠের পাটাতন ভেঙে ১০ শ্রমিক আহত

বাঘাবাড়ি বন্দর থেকে এভাবেই মালামাল নামানো হয়।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার বাঘাবাড়ি নৌবন্দরে বুধবার দুপুরে কাঠের পাটাতন ভেঙ্গে ১০ শ্রমিক আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে রতনকান্দি গ্রামের লাল প্রামাণিকের ছেলে শফিকুল ইসলাম (৩৫) ও জিগারবাড়িয়া গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে বিপুলে (২২) অবস্থা আশঙ্কাজনক।

শ্রমিকরা জানান, বন্দরের পূর্বপাশে নোঙ্গর করা এমভি রওনাক-১ জাহাজ থেকে শ্রমিকরা ইউরিয়া সারের বস্তা আনলোড করছিল। হঠাৎ বিকট শব্দে শ্রমিকদের ওঠা-নামার জন্য ব্যবহৃত কাঠের পাটাতনটি ভেঙ্গে যায়। এতে ১০/১৫ জন শ্রমিক নদীর মধ্যে পড়ে যায়।

দুর্ঘটনায় প্রায় ১০ জন আহত হয়। দুইজনের অবস্থা গুরুতর। তাদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করা হচ্ছে।

বাঘাবাড়ি নৌবন্দরের শ্রমিক সরদার রওশন আলী জানান, বাঘাবাড়ি নৌবন্দরে জাহাজ থেকে মালামাল খালাসের জন্য চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত পল্টনের অভাবে বাঁশ ও কাঠের তৈরি পাটাতন ও মাচাল ব্যবহার করে শ্রমিকদের সার লোড-আনলোড করতে হয়। এতে প্রায়ই ছোট খাট দুর্ঘটনা ঘটে। অনেক শ্রমিক আহত হয়।

তিনি এ সমস্যা দূর করতে বাঘাবাড়ি নৌবন্দরে দ্রুত পর্যাপ্ত পোল্টনের ব্যবস্থা করার জোর দাবি জানান।

বাঘাবাড়ি নৌ-বন্দর শ্রমিক এজেন্ট আবুল সরকার দেশ রূপান্তরকে বলেন, এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে। ছয় মাস আগে নৌ-মন্ত্রী শাহজাহান খানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এ নৌ-বন্দরকে প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত করে সংস্কারের দাবী করা হয়েছে। তিনি ওয়াদা দিয়ে গেছেন। কিন্তু এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। আশাকরি আগামী ছয় মাসের মধ্যে তা বাস্তবায়ন হবে।

বিআইডাব্লিউটিএর বাঘাবাড়ি কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাজ্জাদুর রহমান বলেন, খুব অচিরেই এ নৌ-বন্দরটি প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত হবে। তখন এর ব্যাপক উন্নয়ন করা হবে। তখন আর এ সমস্যা থাকবে না।