‘আল মাহমুদ বেঁচে থাকবেন চিরকাল’|127408|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৫ মার্চ, ২০১৯ ২২:৩৩
‘আল মাহমুদ বেঁচে থাকবেন চিরকাল’
নিজস্ব প্রতিবেদক

‘আল মাহমুদ বেঁচে থাকবেন চিরকাল’

বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি আল মাহমুদ গত ১৫ ফেব্রুয়ারি মৃত্যুবরণ করেছেন।

মঙ্গলবার শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে আল মাহমুদ স্মরণে অনুষ্ঠিত হয়েছে নাগরিক শোকসভা। আয়োজন করেছে কবি আল মাহমুদ পরিষদ।

এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, ‘লোক লোকান্তর, কালের কলস ও সোনালী কাবিন- এই তিনটি কাব্যগ্রন্থ দিয়েই বাংলা সাহিত্যে স্থায়ী আসন করে নিয়েছিলেন আল মাহমুদ।

সোনালী কাবিনে আঞ্চলিক ভাষার প্রয়োগ যেভাবে কাব্যভাষায় রূপ লাভ করেছে তা যে কোন ভাষার জন্য গৌরবের। আল মাহমুদের স্মৃতিকথা ‘যেভাবে বেড়ে উঠি’ বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ স্মৃতিকথা। ‘পাখির কাছে ফুলের কাছে’ রচনাও শিশু সাহিত্যে তার লেখা স্থায়ী আসন দিয়েছে। আল মাহমুদের রচনা আমাদের মাঝে বেঁচে থাকবে, আল মাহমুদ বেঁচে থাকবেন চিরকাল।’

বাংলা একাডেমির প্রাক্তন মহাপরিচালক ড. মাহমুদ শাহ কোরেশীর সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন শিল্পী মুস্তাফা জামান আব্বাসী, সাবেক প্রধান বিচারপতি আব্দুর রউফ, কবি আল মুজাহিদী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান প্রমুখ।

আলোচনায় অংশ নেন কবি হাসান হাফিজ, কবি আবদুল হাই শিকদার, কবি রেজাউদ্দিন স্ট্যালিন, কবি শাহীন রেজা, কবি আতাহার খান প্রমুখ।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন আল মাহমুদ পরিষদের আহ্বায়ক কবি আসাদ চৌধুরী।

কবি আসাদ চৌধুরী বলেন, ভাষাকে নিজস্বতা দিতে পেরেছিলেন কবি আল মাহমুদ। তিনি সেই বিরল কবিদের একজন যাকে শনাক্ত করতে খুব বেশি কষ্ট করতে হয় না। আল মাহমুদ তার জন্ম থেকেই এই বাংলার মাটি আকাশ নদীর সঙ্গে সম্পৃক্ত। তিনি যত না বই পড়েছেন তার চেয়ে বেশি বাংলার প্রকৃতিকে বেশি পাঠ করেছেন, উপলব্ধি করেছেন।

কবি আল মাহমুদের কবিতা পাঠ করেন নাসিম আহমেদ, সীমা ইসলাম, শামীমা চৌধুরী, হাফসা মাহমুদ প্রমুখ।

কবিকে নিবেদিত কবিতা পাঠ করেন কবি হাসান হাফিজ, মতিন বৈরাগী, বকুল আশরাফ, কবি জাহাঙ্গীর ফিরোজ, জাফর আহসান প্রমুখ।