logo
আপডেট : ১১ মার্চ, ২০১৯ ০০:২৫
সংসদে প্রতিমন্ত্রী
পর্যটনশিল্পে মহাপরিকল্পনা সরকারের
বিশেষ প্রতিনিধি

পর্যটনশিল্পে মহাপরিকল্পনা সরকারের

দেশের পর্যটন শিল্প মহাপরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী।

রবিবার জাতীয় সংসদে বিরোধীদল জাতীয় পার্টির সাংসদ লে. কর্নেল (অব.) মাসুদউদ্দিন চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান তিনি।

মাহবুব আলী আরও জানান, পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনা আছে এমন ৮০০ টি স্থান চিহ্নিত করেছে সরকার। এসব স্থানে বাংলাদেশের বিদ্যমান প্রাকৃতিক ও ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থানে উন্নত অবকাঠামো নির্মাণের পাশাপাশি পরিবেশবান্ধব পর্যটন সুবিধা অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

আওয়ামী লীগের সাংসদ এ কে এম রহমতুল্লাহর অপর এক প্রশ্নের জবাবে মাহবুব আলী জানান, বাংলাদেশের সঙ্গে বিশ্বের ৫৩টি দেশের বেসামরিক বিমান চলাচল চুক্তি রয়েছে। বিভিন্ন বিমান সংস্থা বাংলাদেশে সপ্তাহে ৩২৫টি ফ্লাইট পরিচালনা করে। এর মধ্যে ভারত ৫৩টি, ইউএই ৭৮টি, মালয়েশিয়া ৪২টি, সিঙ্গাপুর ১৬টি, ভুটান চারটি, কাতার ২৯টি, থাইল্যান্ড ২১টি, পাকিস্তান চারটি, কুয়েত ১২টি, সৌদি আরব ৩১টি, শ্রীলঙ্কা সাতটি, চীন ১৬টি, বাহরাইন পাঁচটি, আজারবাইজান তিনটি ও ওমান চারটি ফ্লাইট পরিচালনা করে।

২০১৭-১৮ অর্থ বছরে বিমানের লোকসান ২০১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বলে জানিয়েছেন বিমান প্রতিমন্ত্রী।  হবিগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ গাজী মোহাম্মদ শাহনেওয়াজের প্রশ্নের আরেক জবাবে এ তথ্য জানান তিনি।

তিনি জানান, উড়োজাহাজের জ্বালানি মূল্য বৃদ্ধি, বৈদেশিক মুদ্রার বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়ন ও এয়ারক্র্যাফট ক্রু মেইনটেন্যান্স ইনস্যুরেন্স (এসিএমআই) ভিত্তিতে উড়োজাহাজ ব্যবহারের কারণে লোকসান হয়েছে।