বিচার নিষ্পত্তিতে আপিল বিভাগে বিশেষ বেঞ্চ চায় তদন্ত সংস্থা|131799|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৫ মার্চ, ২০১৯ ২২:২১
মানবতাবিরোধী অপরাধ
বিচার নিষ্পত্তিতে আপিল বিভাগে বিশেষ বেঞ্চ চায় তদন্ত সংস্থা
নিজস্ব প্রতিবেদক

বিচার নিষ্পত্তিতে আপিল বিভাগে বিশেষ বেঞ্চ চায় তদন্ত সংস্থা

প্রায় তিন বছর ধরে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার বিচারের শুনানি না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। পাশাপাশি বিচার নিষ্পত্তির জন্য আপিল বিভাগে তিন বিচারপতির সমন্বয়ে একটি বিশেষ বেঞ্চ গঠনের সুপারিশ করেছে তদন্ত সংস্থা।  

সোমবার ধানমন্ডিতে ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার কার্যালয়ে ৬৯তম তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর এ নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল হান্নান খান ও সহ সমন্বয়ক সানাউল হক খান।

আব্দুল হান্নান খান বলেন, ‘মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার সাক্ষী, ভুক্তভোগী, বিচারপ্রার্থী ও দেশের মানুষের আকাঙ্ক্ষা বিবেচনায় নিয়ে যুদ্ধাপরাধের মামলাগুলোর দ্রুত নিষ্পত্তি হওয়া প্রয়োজন। যে সকল মামলাগুলো আপিল বিভাগে বিচারাধীন আছে সেসব মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় বিচারপ্রার্থীদের পাশাপাশি আমাদেরও হতাশা আছে।’

আপিলে মামলা নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে একটা সুযোগ রয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘মামলা নিষ্পত্তির জন্য এক বা একাধিক আপিল আদালত গঠন করা যেতে পারে। অবশ্য এটি সরকারের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে।’ তিনি বলেন, ‘সরকারের নীতি নির্ধারক যারা আছেন, তাদের প্রতি আমাদের পরামর্শ থাকবে মামলাগুলো নিষ্পত্তির জন্য তিনজন বিচারপতির সমন্বয়ে একটি বেঞ্চ গঠন করে দেওয়া হোক।’

তদন্ত সংস্থার জ্যেষ্ঠ সমন্বয়ক সানাউল হক খান বলেন, ‘প্রায় তিন বছর ধরে আপিল বিভাগে কোন মামলা চূড়ান্ত পরিণতিতে যায়নি। এক সময় ট্রাইব্যুনালে বিচারকাজ সম্পন্ন হওয়ার প্রায় সঙ্গে সঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগেও সমাধান হয়ে যেতে দেখেছি। এখন হয়ত আপিল বিভাগে কাজের বাড়তি চাপ হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু আমরা তো এ বিষয়ে আদালতকে জিজ্ঞেস করতে পারি না।’

আপিল বিভাগে বিচারাধীন মামলাগুলো প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যদি চিফ প্রসিকিউটর এই আপিলগুলোকে আপিল বিভাগে প্রসিকিউট করেন, তাহলে এ সমস্যার সমাধানের পথ তৈরি হত।’ তিনি আরও বলেন, ‘অ্যাটর্নি জেনারেল কাজের চাপে ভারাক্রান্ত হয়ে পড়েন। তাই অ্যাটর্নি জেনারেলের সহযোগিতা নিয়ে চিফ প্রসিকিউটর মামলাগুলো আপিলে প্রসিকিউট করতে পারেন। এতে আইনগত কোনো বাধা থাকার কথা নয়।’