‘ডিভোর্সের টাকায়’ বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারীর একজন তিনি|134216|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:৪১
‘ডিভোর্সের টাকায়’ বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারীর একজন তিনি
অনলাইন ডেস্ক

‘ডিভোর্সের টাকায়’ বিশ্বের শীর্ষ ধনী নারীর একজন তিনি

ডিভোর্সের চুক্তির মধ্যে দিয়ে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী নারী হয়ে গেলেন মেকেনজি বেজোস। অনলাইন জায়ান্ট প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা ও পৃথিবীর শীর্ষ ধনী জেফ বেজোসের স্ত্রী তিনি। বৃহস্পতিবার এ দম্পতি ডিভোর্সের চুক্তি সম্পন্ন করেন।

বিবিসি জানায়, বিচ্ছেদের ফলে স্ত্রীকে বেজোসের পরিশোধ করতে হবে ৩৫০০ কোটি ডলার বাংলাদেশি টাকায় যা প্রায় ৩ লাখ কোটি। ডিভোর্স চুক্তির এখন পর্যন্ত সব রেকর্ড ভেঙে ফেলেছে এটি। মেকেনজি তার স্বামীর প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের ৪ শতাংশ মালিকানা পাবে।

স্বামী-স্ত্রী দুজনের সম্মতিতেই বিয়েবিচ্ছেদের পুরো প্রক্রিয়াটি সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে এ দম্পতি আলাদা আলাদা টুইটার বার্তায় জানিয়েছেন। আগামী ৯০ দিনের মধ্যে তাদের ডিভোর্স সম্পন্ন হবে।

প্রায় ৮৯০০ কোটি ডলার মূল্যের বিশ্বের সবচেয়ে ধনী কোম্পানিটির পরিবারে এ ঘটনায় আলোড়ন তুলেছে পুঁজিবাজারেও। বিশ্বের ধনী নারীদের তালিকায় যুক্ত হলো ৪৮ বছর বয়সী মেকেনজির নাম। তিনি এখন বিশ্বের শীর্ষ চতুর্থ ধনী নারী। ল’রিয়েল ও ওয়ালমার্টে মালিকানায় থাকা নারীদের পরই এখন মেকেনজির অবস্থান।

প্রায় ২৫ বছর আগে বেজোস অ্যামাজন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তবে বেজোসের স্পেস ট্রাভেল ফার্ম ব্লু অরিজিন এবং ওয়াশিংটন পোস্ট থেকে নিজের লভ্যাংশ ছেড়ে দিচ্ছেন তিনি।

এ দম্পতি চার সন্তান রয়েছে। ১৯৯৪ সালে বেজোস অ্যামাজন প্রতিষ্ঠা করেন। অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাকালীন কর্মকর্তা ছিলেন মেকেনজি।

জানুয়ারিতে এ দম্পতি বিয়েবিচ্ছেদের ঘোষণা দেন। ফক্স চ্যানেলের হোস্ট লরেন শানচেজের সঙ্গে বেজোসের প্রেমের সম্পর্ক গোচরে আসলে এ জুটি আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

ফোর্বস ম্যাগাজিনের মতে, গত বছর অ্যামাজন ২৩ হাজার কোটি ডলারের ব্যবসা করে। এতে বেজোস পরিবারের আয়ের অংশ হচ্ছে ১৩ হাজার কোটি ডলার।

ডিভোর্সের আগে বেজোসের সম্পত্তির মূল্য ছিল ১৩১০ কোটি ডলার। ৫৫ বছর বয়সী এ শীর্ষ ধনীর পরেই আছেন মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস যার সম্পত্তির মূল্য এক হাজার কোটি ডলারের কাছাকাছি।