কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে চীন-মাইক্রোসফটের সম্পৃক্ততায় উদ্বিগ্ন আমেরিকা|135355|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১০ এপ্রিল, ২০১৯ ১৭:৪৮
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে চীন-মাইক্রোসফটের সম্পৃক্ততায় উদ্বিগ্ন আমেরিকা
অনলাইন ডেস্ক

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে চীন-মাইক্রোসফটের সম্পৃক্ততায় উদ্বিগ্ন আমেরিকা

নিজেদের দেশের কম্পিউটার প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফট চীনের সেনাবাহিনীর একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়ে আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স’ বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করায় উদ্বেগ জানিয়েছে আমেরিকা।

ফিন্যান্সিয়াল টাইমসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, নজরদারি এবং সেন্সরশিপ প্রযুক্তিতে আরও দক্ষ হতে চীনের সেনাবাহিনী মাইক্রোসফটের সঙ্গে কাজ করছে।

একটি নথির বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি বলছে, এমন কিছু প্রযুক্তি চীন তৈরি করতে চায় যাতে মানুষের মুখের আকৃতি বিশ্লেষণ করে বিস্তারিত ধারণা পাওয়া যায়। এই প্রযুক্তিতে নজরদারি এবং সেন্সরশিপের অ্যাপ্লিকেশন্স থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কোনো যন্ত্রকে যখন স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাজ করার জন্য বানানো হয়, তখন সেখানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ মানুষের মতো কাজ পেতে যে যন্ত্র তৈরি করা হয় তাকে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার যন্ত্র বলে।

নিউ আমেরিকা এবং চীনা টেক পলিসি বিশেষজ্ঞ স্যাম স্যাকস বলছেন, ‘প্রযুক্তির ধরনের কারণে প্রকাশিত নথি বিপদ সংকেত দিচ্ছে।’

তিনি মনে করেন, সংখ্যালঘুদের আটক করতে চীনা সরকার এই প্রযুক্তিতে দক্ষ হওয়ার চেষ্টা করছে।

প্রযুক্তিতে, যুদ্ধক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করতে চীনের সঙ্গে আমেরিকার সব সময় একটা মনস্তাত্ত্বিক লড়াই চলে। আমেরিকা সম্প্রতি চীনের একটি মোবাইল কোম্পানির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় তথ্য চুরির অভিযোগ তোলে। বিষয়টি নিয়ে দুই দেশের মধ্যে রীতিমতো বাণিজ্যিক যুদ্ধ চলছে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে নতুন খবর শোনার পর আমেরিকা চীনে পণ্য রপ্তানি-আমদানির ওপর কঠোর নিয়ম আরোপ করতে পারে।