দক্ষিণ সুদানে যুদ্ধ এড়াতে নেতাদের পায়ে পড়লেন পোপ!|135844|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১২ এপ্রিল, ২০১৯ ১৯:৩৬
দক্ষিণ সুদানে যুদ্ধ এড়াতে নেতাদের পায়ে পড়লেন পোপ!
অনলাইন ডেস্ক

দক্ষিণ সুদানে যুদ্ধ এড়াতে নেতাদের পায়ে পড়লেন পোপ!

বিশ্বের সবচেয়ে অসুখী দেশ দক্ষিণ সুদানে আরেকটি গৃহযুদ্ধ এড়াতে দেশটির নেতাদের পায়ে নতজানু হয়ে চুমু খেয়েছেন ক্যাথলিক ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, কোনো রাজনৈতিক নেতাদের উদ্দেশে পোপের মতো সম্মানজনক ব্যক্তি এই প্রথম এমন কাজ করলেন।

৩১৯ একর আয়তনের ক্ষুদ্রতম রাষ্ট্র ভ্যাটিকানে দুই দিনের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যান আফ্রিকান নেতারা। শেষদিন বৃহস্পতিবার দক্ষিণ সুদানের প্রেসিডেন্ট, বিরোধী দলের নেতা এবং বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্টের পায়ে পোপ এভাবে চুমু খান।

দক্ষিণ সুদান পৃথিবীর সবচেয়ে নবীন রাষ্ট্র। সুদানের সঙ্গে দুই দশকের রক্তাক্ত লড়াই শেষে ২০১১ সালের ৯ জুলাই দেশটি স্বাধীন হয়।

২০১৩ সালে দেশটির প্রেসিডেন্ট সালভা কির ও তৎকালীন ভাইস প্রেসিডেন্ট রিয়েক মাচারের মধ্যকার দ্বন্দ্ব নিয়ন্ত্রণের বাইরে গিয়ে সেনাবাহিনীর মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। যে সেনাবাহিনীও আবার গোষ্ঠীতে গোষ্ঠীতে বিভক্ত। জুবায় যে গোষ্ঠীকেন্দ্রিক হত্যা শুরু হয় তা দ্রুত দেশের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়ে। সেই থেকে প্রায় ৪ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে।

এর প্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের আগস্টে দুজনের মধ্যে আপস হয়। কিন্তু শুরু থেকেই ব্যাপারটা অসম্ভব ছিল, কারণ তারা দুজনেই পরস্পরকে অত্যন্ত ঘৃণা করেন।

দক্ষিণ সুদানের বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট রেবেকা ন্যানন্দেং গারং পোপের এমন আচরণে আপ্লুত। তিনি বলেন, ‘কোনো দিন কাউকে এমন করতে দেখিনি। আমি হতভম্ব হয়েছি, কেঁদেছি।’

৮২ বছর বয়সী পোপ নেতাদের বলেন, ‘ভাই হিসেবে আপনাদের শান্ত থাকতে বলছি। হৃদয় থেকে বলছি সামনে এগিয়ে যান।’

২০১৩ সালের ১৩ মার্চ ভ্যাটিকানের ২৬৬তম পোপ নির্বাচিত হন ফ্রান্সিস। রোমের বিশপ হিসেবে তিনি বিশ্বব্যাপী ক্যাথলিক চার্চ এবং সার্বভৌম ভ্যাটিকান সিটির প্রধান।