‘স্তালিন’ বন্ধের দাবিতে বামপন্থীদের বিক্ষোভ (ভিডিও)|148274|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১২ জুন, ২০১৯ ১৮:৪৮
‘স্তালিন’ বন্ধের দাবিতে বামপন্থীদের বিক্ষোভ (ভিডিও)
অনলাইন ডেস্ক

‘স্তালিন’ বন্ধের দাবিতে বামপন্থীদের বিক্ষোভ (ভিডিও)

স্তালিন নাটকের একটি দৃশ্য

কামালউদ্দিন নীলু নির্দেশিত মঞ্চনাটক ‘স্তালিন’ নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে শো শেষে জাতীয় নাট্যশালার ভেতরে স্লোগান দিতে দেখা যায় বাম সংগঠন সম্পৃক্ত অনেককে। সোশ্যাল মিডিয়ায় আপ করা ভিডিওতে ঘটনাটি উঠে এসেছে।

প্রতিবাদকারীরা ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’, ‘সাম্রাজ্যবাদের দালালেরা হুঁশিয়ার সাবধান, সমাজতন্ত্রের দালালেরা হুঁশিয়ার সাবধান’সহ নানা রকম স্লোগান দেন।

নাটকটির কেন্দ্রীয় চরিত্র ১৯২২ থেকে ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত সোভিয়েত ইউনিয়নের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক যোসেফ স্তালিন। ডার্ক-হিউমার যোগে নাটকে তার কর্তৃত্ববাদী চরিত্রে তুলে ধরা হয়। আর এই নিয়েই আপত্তি। নাটক বন্ধের দাবিও উঠে।

এই বিতর্ক নিয়ে অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় মন্তব্য করেছেন। জনপ্রিয় অভিনেত্রী বন্যা মির্জা লেখেন, “নাটক পছন্দ বা অপছন্দ হতেই তো পারে! সমালোচনা থাকবে, তাই বলে নাটক বন্ধ! এটা যারা শুরু করেছেন তাদের ঘরেও আসবে নিশ্চিত। প্রথমে নিজের ঘরে শুরু করেছি... এখন বাইরের লোক থেকে ঘর সামলাও!”

‘রাবেয়া’ সিনেমার অভিনেত্রী আরও লেখেন, “আমার ধারণা কামালউদ্দিন নীলু স্যার সারা জীবনে অজস্রবার ‘রুশ-ভারতের দালাল’ কথাটি শুনেছেন। আজ শুনলেন ‘মার্কিন-সাম্রাজ্যবাদের’ দালাল। একটা নাটক করেই? নাটকীয়ভাবেই তার জীবনাদর্শ বদলে গেল?! বলশেভিক ভক্তির বাইরে কোনো রাস্তা নাই? এটাই তো মার্কিন রাস্তা – ‘হয় আমার পক্ষে নাহয় আমার বিপক্ষে।’

আর বিদেশে থাকা কবে থেকে বামপন্থী দলগুলোর এত ‘অপ্রিয়’ হয়ে গেল। জেলা পর্যায়ের নেতা ছাড়া জাতীয় কমরেডদের বাড়ির লোকজন তো বিদেশই থাকে দেখছি বেশির ভাগ। ট্রটস্কির মতো নীলু ভাইয়ের নির্বাসন না হোক।”

নাট্যকার রুমা মোদক লেখেন, “স্তালিন ইতিহাসের নায়ক না খলনায়ক এই বিতর্ক ডায়নামিক। মার্ক্সবাদ লেনিনবাদ কোন অপৌরুষেয় শাস্ত্র নয় এ নিয়ে আলোচনা চলবে না। নাটক বন্ধ করার স্লোগান তোলা প্রতিক্রিয়াশীল আচরণের নামান্তর।”

কবি তৌহিদুল ইসলাম ‘স্তালিন: নিরঙ্কুশ ক্ষমতার ডার্ক সার্কাজম’ শীর্ষক দীর্ঘ প্রতিক্রিয়ার শুরুতে লেখেন, “সত্য, শান্তি ও প্রগতির নামে সমগ্র মানবতার মুক্তি বিষয়ক যুদ্ধের চেতনা, সুখ আর সমৃদ্ধির বাস্তবিক স্বপ্ন দেখানো একটা মতাদর্শ ছাড়া অত ভয়ংকর কি আর কোন স্বৈরশাসকের পক্ষে হয়ে ওঠা সম্ভব? আবার শেষ পর্যন্ত তিনিও তো একজন ব্যক্তিই।

এমন একজন ঐতিহাসিকভাবে বিতর্কিত প্রবল ব্যক্তিকে অতি মহান অথবা অতি ঘৃণিত হিসেবে উপস্থাপনের পপুলার আকাঙ্ক্ষার ফাঁদ এড়িয়ে যাওয়া কঠিন। এই জায়গা থেকে কামালউদ্দিন নীলু নির্দেশিত সেন্টার ফর এশিয়ান থিয়েটারের নাটক ’স্তালিন’ হয়তো হতাশ করবে অনেককেই।”

তিনি আরও লেখেন, “স্তালিন’ নাটকটি নিয়ে এরই মধ্যে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। কেউ কেউ একে কমিউনিজমের বিরুদ্ধে সাম্রাজ্যবাদী শক্তির এজেন্ডা বাস্তবায়নের ষড়যন্ত্র হিসেবেও দেখছেন। ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’ স্লোগানে বিক্ষোভ্ও হয়েছে মঞ্চায়নস্থলে। নিশ্চয়ই তাদের মার্ক্সবাদী অনুভূতিতে এই নাটক তীব্র আঘাত।

কিন্তু স্নায়ুযুদ্ধের যুগে দুনিয়া আর নাই। পৃথিবীর অনেক দেশেই গণতন্ত্রের খোলসে নতুন ধরনের স্বৈরশাসকের উত্থান দেখা যাচ্ছে। ক্ষমতা, ভয় আর রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের চিত্র সবখানে একই। এই কনটেক্সটে দেখা গেলে বাংলাদেশের রাজধানী শহর ঢাকার নাট্যমঞ্চে স্তালিন ও তার চামচাবর্গের এই ডার্ক সার্কাজম কিছুটা অর্থপূর্ণ হতে পারে।”

‘স্তালিন’-এর মাধ্যমে পাঁচ বছর ঢাকার মঞ্চে ফিরলেন নীলু। দশ মিনিট বিরতি-সহ আড়াই ঘন্টার নাটকের নাম ভূমিকায় আছেন মো. শাহাদাত হোসেন। আরও অভিনয় করেছেন সাবিনা সুলতানা, রায়হান আখতার, এ কে আজাদ, মোহাম্মদ রাফী সুমন, শাওন কুমার দে, শিপ্রা দাস, শান্তনু চৌধুরী, সুব্রত প্রসাদ বর্মণ, মর্জিনা মুনা, মেজবাউল করিম, চিন্ময়ী গুপ্তা, কাবেরী জান্নাত প্রমুখ।

নাটকটির শেষ দিনের প্রদর্শনী হচ্ছে বুধবার সন্ধ্যা ৭টায়।