রিফাত হত্যা: বজ্রপাতকে দুষছেন বরগুনা কলেজের অধ্যক্ষ|153159|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৫ জুলাই, ২০১৯ ২১:১৪
রিফাত হত্যা: বজ্রপাতকে দুষছেন বরগুনা কলেজের অধ্যক্ষ
বরগুনা প্রতিনিধি

রিফাত হত্যা: বজ্রপাতকে দুষছেন বরগুনা কলেজের অধ্যক্ষ

বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ পাওয়া যাচ্ছে না।

ওই কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ এ জন্য দুষছেন বজ্রপাতকে। তার বিরুদ্ধে এ হত্যায় অভিযুক্ত বন্ড বাহিনীর নানা অপকর্ম আড়াল করার অভিযোগও উঠেছে। 

জানা গেছে, ওই দিন বরগুনা সরকারি কলেজের ভেতরে নোটিশ বোর্ডের সামনে রিফাতকে প্রথম পেটানোর ঘটনা ঘটে। যার ছবি সিসি ক্যামেরায় থাকার কথা। 

তবে কলেজ অধ্যক্ষের দাবি, ঘটনার দুদিন আগে বজ্রপাতে সিসি ক্যামেরা অকেজো হয়ে যায়।

তদন্তের স্বার্থে এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হয়নি পুলিশ। 

হত্যা মামলার আসামি রিফাত ফরাজি ছাত্র হোস্টেলে গিয়ে ছেলেদের হুমকি দিতো ও মাদকের টাকা চাইত বলেও জানায় শিক্ষার্থীরা। তবে তার বিরুদ্ধে অধ্যক্ষ ব্যবস্থা নেননি বলে অভিযোগ তাদের। 

জানা গেছে, ওই দিনের খুনের ঘটনায় ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে যারা রিফাতকে কুপিয়েছে তাদের বাইরেও বন্ড বাহিনীর একটি দল কাজ করেছে কলেজের ভেতরে। নোটিশ বোর্ডের সামনে থেকে তারা রিফাত শরীফকে মারতে মারতে কলেজ গেটের বাইরে নিয়ে যায়। আর সেখানেই পরবর্তীতে নয়ন, রিফাত ফরাজি ও রিশান ফরাজিসহ সন্ত্রাসীরা রিফাতকে কুপিয়ে হত্যা করে।

অধ্যক্ষ প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ বলেন, ক্যামেরাগুলো সব ভালোই ছিল। ২৪ তারিখে বজ্রপাতের কারণে মনিটরটা নষ্ট হয়ে গেছে।

তবে কলেজ হোস্টেলের শিক্ষার্থীরা বলছে, বজ্রপাতের কোন ঘটনাই ঘটেনি সে সময়।

২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী আয়শা আক্তার মিন্নি হামলাকারীদের বাধা দিয়েও স্বামীকে রক্ষা করতে পারেননি। রিফাতকে কুপিয়ে অস্ত্র উঁচিয়ে এলাকা ত্যাগ করে হামলাকারীরা। তারা চেহারা লুকানোরও কোনও চেষ্টা করেনি। গুরুতর আহত রিফাতকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ওই দিন বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন বলেন, তদন্ত চলমান। কার তথ্যের ভিত্তিতে কাকে ধরা হবে না হবে, সেগুলো এখানে বলে দিলে আমি আসামি ধরব কী করে? 

রিফাতকে প্রকাশ্যে স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত চারজনকে গ্রেপ্তার ও এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ডের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।