বকেয়ার দাবিতে বিআরটিসির চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ|156805|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২২ জুলাই, ২০১৯ ২২:০১
বকেয়ার দাবিতে বিআরটিসির চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ
নিজস্ব প্রতিবেদক

বকেয়ার দাবিতে বিআরটিসির চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ

পরিবহন শ্রমিকদের বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে বিআরটিসির চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে রেখে বাস চালক ও তাদের সহকারীরা বিক্ষোভ করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

সোমবার রাজধানীর দিলকুশা এলাকায় পরিবহন ভবনের প্রধান গেটে তালা দিয়ে শতাধিক পরিবহন শ্রমিক বিক্ষোভ শুরু করেন। ওই ভবনের চতুর্থ তলায় বিআরটিসির চেয়ারম্যান ফরিদ আহমদ ভূঁইয়ার কার্যালয়।

আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, তাদের কারও কারও ১৭ মাসের বেতন-ভাতা বকেয়া রয়েছে। পরিবার পরিজন নিয়ে তারা মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। এর আগে চেয়ারম্যানের কার্যালয় থেকে বারবার আশ্বাস দেওয়া হলেও সমস্যার সমাধান হয়নি বলে অভিযোগ করেন এই পরিবহন শ্রমিকরা।

পরিবহন শ্রমিকদের বিক্ষোভের মধ্যে বিআরটিসি সচিব নূর-ই-আলম দুপুরে পরিবহন ভবনের ভেতর থেকে গেটের সামনে এসে শ্রমিকদের সমস্যা সমাধানে আশ্বাস দেন। কিন্তু বিক্ষোভকারীরা তাতে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।

এ সময় বাস চালক শামীম হাওলাদার সচিবকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “আপনার এই মৌখিক আশ্বাস আমরা মানতে পারছি না। চেয়ারম্যান আমাদের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধের ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত তাকে বের হতে দেব না।”

বিআরটিসি সিবিএ-এর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন এ সময় বলেন, “শ্রমিকরা যে দাবি করছে তা কোনোভাবে অযৌক্তিক নয়। মুখের কথায় আর কোনো শ্রমিক মানতে চাইবে না।” তিনি আরও বলেন, “কত সময়ের মধ্যে বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হবে তা আজকে একটা অর্ডার করেন, তাহলেই সমস্যার সমাধানের পথে আসবে।”

বিক্ষোভে অংশ নেওয়া বিআরটিসির বাস চালক মো. মফিজুর দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘সারা দেশে বিআরটিসির ডিপোতে প্রায় সাড়ে চার হাজার চালক, হেলপার, টেকনিশিয়ান, অফিস সহকারী এবং নিরাপত্তারক্ষী কাজ করেন। সরকারি বেতন স্কেলে তারা তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী। তাদের অনেকের ১৩ মাস, আবার কারও ১৭ মাসের টাকা বকেয়া।’