বাজিতপুরে সংঘর্ষে প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত ২, আহত ২৩|161318|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৪ আগস্ট, ২০১৯ ২২:৫৮
বাজিতপুরে সংঘর্ষে প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত ২, আহত ২৩
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

বাজিতপুরে সংঘর্ষে প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত ২, আহত ২৩

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার একই গ্রামের দুই পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনায় প্রতিপক্ষের গুলিতে শরীফ (৩২) ও ফোরকান (২৭) নামে দুজন নিহত হয়েছে। এছাড়া ১২ জন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ২৩ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে শাহ জামাল (৩৪) নাম একজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার মাইজচর ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামে প্রাণঘাতী সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। নিহতদের মধ্যে শরীফ শ্যামপুর গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে ও মো. ফোরকান মিয়া একই গ্রামের লাহুত আলীর ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, শ্যামপুর গ্রামের ইউপি সদস্য মো. বাক্কার মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের ফারুক মিয়ার মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। বুধবার সকালে ইউপি সদস্য বাক্কার মিয়ার ছোট ভাই মোল্লা মিয়া ফারুক মিয়ার বাড়ির পাশের রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল। রাস্তায় তাকে একা পেয়ে ফারুক মিয়ার লোকজন মারপিট করে। পরে এ বিষয়টি তার পরিবারের লোকজন শুনতে পেলে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউপি সদস্য বাক্কার মিয়ার পক্ষের লোকজন এগিয়ে গেলে ফারুক মিয়ার লোকজন তাদের উপর গুলি চালায়। গুলিতে ইউপি সদস্য বাক্কার মিয়ার পক্ষের ফোরকান ঘটনাস্থলেই নিহত হয় এবং অন্তত ১২ জন গুলিবিদ্ধসহ ২৩ জন আহত হয়।

আহতদের মধ্যে ইউপি সদস্য বাক্কার মিয়ার ছোট ভাই শরীফকে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মারা যায়। এছাড়া পেটে গুলিবিদ্ধ গুরুতর আহত শাহ জামালকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন  রয়েছে।

বাজিতপুর থানার ওসি মো. খলিলুর রহমান পাটওয়ারী জানান, দুই পক্ষের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করেই ঘটনাটি ঘটেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এছাড়া নিহত দুজনের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হচ্ছে বলে জানান তিনি। এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোন পক্ষ মামলা করতে থানায় আসেনি।