ডেঙ্গুতে আরও ৬ জনের মৃত্যু|162352|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২০ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০
ঢাকায় বেড়েছে রোগী
ডেঙ্গুতে আরও ৬ জনের মৃত্যু
নিজস্ব প্রতিবেদক

ডেঙ্গুতে আরও ৬ জনের মৃত্যু

ঢাকার বাইরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কিছু কমলেও রাজধানীতে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। গতকাল সোমবার সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ১ হাজার ৬১৫ জন নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। এদের মধ্যে ঢাকায় ভর্তি হয়েছেন ৭৫৭ জন। ঢাকার বাইরে ৮৫৮ জন। এর আগে গত রবিবার ঢাকায় ভর্তি রোগীর সংখ্যা ছিল ৭৩৪ জন এবং ঢাকার বাইরে ৯৭২ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম এ তথ্য জানায়। এছাড়া গতকাল সোমবার সারা দেশে ডেঙ্গুতে আরও ৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। দেশ রূপান্তর-এর হিসাব অনুযায়ী গতকাল পর্যন্ত চলতি মৌসুমে ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ১১৫। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর  এখন পর্যন্ত ৪০ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) ডেঙ্গুতে ৭০টি সম্ভাব্য মৃত্যু পর্যালোচনা করে মৃতের এ সংখ্যা জানিয়েছে।

সরকারি হিসাবে, এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গুতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫৪ হাজার ৭৯৭ জন। এর মধ্যে ৪৮ হাজার ২৪ জন রোগী সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন। বিভিন্ন হাসপাতালে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৬ হাজার ৭৩৩ জন রোগী। এর মধ্যে ঢাকার ৪১টি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৩ হাজার ৪১৯ জন আর ঢাকার বাইরে ৩ হাজার ৩১৪ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ডেঙ্গু রোগীদের মধ্যে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) ১২২ জন, মিটফোর্ড হাসপাতালে ৮১ জন, ঢাকা শিশু হাসপাতালে ২৪ জন, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ৭৫ জন, বিএসএমএমইউতে ৪০ জন, রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে ১৮ জন, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৭৩ জন, পিলখানা বিজিবি হাসপাতালে ৫ জন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ১৪ জন, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ৫৪ জন  ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন। এছাড়া ঢাকা শহরের বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে নতুনভাবে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ২৪৮ জন রোগী।

একই সময়ে ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন জেলায় ২১৯, চট্টগ্রাম বিভাগে ১৫২, খুলনা বিভাগে ১৪৫, রংপুর বিভাগে ৩১, রাজশাহী বিভাগে ৯৫, বরিশাল বিভাগে ১৫৫, সিলেট বিভাগে ১৫ ও ময়মনসিংহ বিভাগে ৪৬ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন।

আরও ৬ জনের মৃত্যু : আমাদের জেলা প্রতিনিধিরা গতকাল সোমবার সারা দেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও ৬ জনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছে। এদের মধ্যে পটুয়াখালীতে সুমাইয়া আক্তার (১৭) নামে এক ছাত্রী বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। সুমাইয়া এ বছর এইচএসসি উত্তীর্ণ হয়ে রাজধানীর একটি কোচিং সেন্টারে ভর্তি কোচিং করছিলেন। ঈদুল আজহার ছুটিতে নিজের বাড়িতে এসে জ¦রে আক্রান্ত হন। গত মঙ্গলবার উপজেলা হাসপাতালে পরীক্ষায় ডেঙ্গু শনাক্ত হলে ওই দিনই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে গতকাল সোমবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়।

গত দুই দিনে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে ডেঙ্গুতে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেনÑ রাসেল (৩৫), আনোয়ার (৪০) ও সেলিম (২৭)। এদের মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত রবিবার রাতে দুইজন ও গতকাল সোমবার দুপুরে একজন মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. লক্ষ্মী নারায়ণ মজুমদার। তিনি দেশ রূপান্তরকে জানান, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার চরনিকি গ্রামের মঞ্জু মিয়ার ছেলে রাসেল বেশ কয়েকদিন ধরে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে কিশোরগঞ্জে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত রবিবার তার অবস্থার অবনতি হলে সেদিন দুপুরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে রাতেই তার মৃত্যু হয়।

নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার বাসিন্দা আনোয়ারও ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে একই দিন মমেক হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে রাতে তিনিও মারা যান। এছাড়াও নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলার বাসিন্দা সেলিম গত ১৩ আগস্ট ডেঙ্গুজ¦রে আক্রান্ত হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেলে ভর্তি হন। গতকাল সোমবার সকালে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। পরে দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মিজানুর রহমান (৪০) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ৭টায় ওই রোগীর মৃত্যু হয়। তার বাড়ি খুলনার রূপসা উপজেলার খাজাডাঙ্গা গ্রামে। তিনি পেশায় একজন সবজি বিক্রেতা। চারদিন আগে তাকে খুমেক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়।

ঢাকায় ঈদ করতে গিয়ে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে গতকাল সোমবার লাশ হয়ে বাড়ি ফিরল শিশু মাসরুফা (১০)। সকাল ৬টায় ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় মারা যায় শিশুটি। মাসরুফা হরিপুর উপজেলার গেদুড়া ইউনিয়নের বরুয়াল (ধনসোড়া) গ্রামের মোস্তফার মেয়ে। মাসরুফার বাবা মোস্তফা জানান, মাসরুফা অসুস্থ হলে ১৪ আগস্ট চিকিৎসার জন্য রাজধানীর রামপুরা বনশ্রী’র এ্যাডভান্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে মাসরুফার ডেঙ্গুজ্বর শনাক্ত করা হয়। এরপর ডা. কামরুল হাসান দুইদিনের ওষুধ দিয়ে ১৯ আগস্ট আবার হাসপাতালে আসতে বলেন। কিন্তু পুনরায় ডাক্তারের কাছে যাওয়ার আগেই তার মেয়ে মাসরুফা ১৯ আগস্ট ভোর ৬টায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মসজিদের খাদেম মারা গেছেন। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মারা যাওয়া ওই রোগীর নাম দেলোয়ার হোসেন (৩৫)। তিনি ফরিদপুর সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের গোলডাঙ্গীচর এলাকার শেখ শফিউদ্দিনের ছেলে। শহরের পূর্বখাবাসপুর মসজিদের খাদেম হিসেবে কর্মরত ছিলেন।