১৫ আইটেমে সেবা মাশুল বাড়াতে চায় চট্টগ্রাম বন্দর|167071|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
১৫ আইটেমে সেবা মাশুল বাড়াতে চায় চট্টগ্রাম বন্দর
চূড়ান্ত পর্যায়ে পরামর্শক নিয়োগ প্রক্রিয়া
শামসুল ইসলাম, চট্টগ্রাম

১৫ আইটেমে সেবা মাশুল বাড়াতে চায় চট্টগ্রাম বন্দর

চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহারে ১৫ আইটেমে সেবা মাশুল বাড়াতে চায় কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন খাতে নতুন করে মাশুল নির্ধারণে এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক পরামর্শক নিয়োগের প্রক্রিয়া চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ১৯৮৬ সালে মাশুল নির্ধারণের পর গত ৩৩ বছরে বন্দর পরিচালনা ব্যয় বাড়লেও মাশুল বাড়েনি। তাই ১৫টি আইটেমের ওপর মাশুল হালনাগাদের প্রস্তাব করা হয়েছে। আইটেমগুলোর মধ্যে রয়েছেÑ পোর্ট ডিউজ, বার্থিং-আনবার্থিং ফি, পাইলটেজ ফি, রিভার ডিউজ (প্রথাগত), রিভার ডিউজ (কন্টেইনারাইজড), শিপিং চার্জ, লিফট অন/লিফট অফ চার্জ (চট্টগ্রাম বন্দর), লিফট অন/লিফট অফ চার্জ (ঢাকা আইসিডি), কন্টেইনার স্টোরেজ চার্জ (ঢাকা আইসিডি), বার্থে অবস্থান, মুরিংয়ে অবস্থান, পানি সরবরাহ চার্জ, স্পেস রেন্ট, কন্টেইনার স্টাফিং-আনস্টাফিং চার্জ ও রিফার কন্টেইনার সার্ভিস। এছাড়া নতুন পাঁচটি আইটেমে মাশুল আরোপের প্রস্তাব করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। এগুলো হলোÑ মোবাইল স্ক্যানার চার্জ, মোবাইল হারবার ক্রেন চার্জ (প্রথাগত), মোবাইল হারবার ক্রেন চার্জ (কন্টেইনার), হ্যাচ কভার চার্জ ও খালি কন্টেইনার অপসারণ চার্জ।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক দেশ রূপান্তরকে বলেন, ৩৩ বছর আগে নির্ধারিত মাশুলে এখনো সেবা দিচ্ছে বন্দর। এর মধ্যে বন্দরের সেবার মান বেড়েছে, বেড়েছে পরিচালন ব্যয়। এ পরিস্থিতিতে সেবা মাশুল যুগোপযোগী করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, সেবা মাশুল হালনাগাদকরণে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রস্তাবনাটি এর আগে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় আলোচনা হয়েছে। সভার নির্দেশনা অনুসারে সেবা মাশুলের যৌক্তিক হার নির্ধারণে আন্তর্জাতিক পরামর্শক নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে।

জানা যায়, আন্তর্জাতিক পরামর্শক নিয়োগের জন্য আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে আবেদন আহ্বান করে বন্দর কর্তৃপক্ষ। মোট আটটি প্রতিষ্ঠান আবেদন করলে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের তালিকা তৈরি করে মূল্যায়ন কমিটি। সংক্ষিপ্ত তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলোÑ ভারতের ডেলয়েট টাচ টোহমাটসু ইন্ডিয়া, স্পেনের আইডিও এম কনসাল্টিং ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড আর্কিটেকচার, জার্মানির এইচপিসি হামবুর্গ পোর্ট কনসাল্টিং জিএমবিএইচ, সিঙ্গাপুরের রয়েল হাসকিং ও নেদারল্যান্ডসের মেরিটাইম অ্যান্ড বিজনেস সলিউশন এমটিবিএস।