দলীয় সরকারের আমলে এ ধরনের শুদ্ধি অভিযান ‘নজিরবিহীন’: কাদের|176549|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১৩:২৮
দলীয় সরকারের আমলে এ ধরনের শুদ্ধি অভিযান ‘নজিরবিহীন’: কাদের
ফেনী প্রতিনিধি

দলীয় সরকারের আমলে এ ধরনের শুদ্ধি অভিযান ‘নজিরবিহীন’: কাদের

দুনিয়ার ইতিহাসে কোনো দেশে দলীয় সরকার তাদের দলের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান পরিচালনা করেছে বলে জানা নেই মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার ফেনীর মহিপাল সার্কিট হাউসে নুসরাত হত্যা মামলার রায় প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

চলমান শুদ্ধি অভিযান নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, দুনিয়ার ইতিহাসে কোনো দেশে দলীয় সরকার তাদের দলের বিরুদ্ধে এ ধরনের শুদ্ধি অভিযান পরিচালনা করেছে বলে জানা নেই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে শেখ হাসিনা নিজের দলের লোকের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা বিরল হয়ে রইবে। তিনি প্রমাণ করেছেন অপরাধ করলে নিজের দলেরও কোনো ছাড় নেই।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, দুর্নীতি, মাদক, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজিতে যারা জড়িত, প্রত্যেকেই নজরদারিতে আছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রমাণ পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নুসরাত হত্যার রায় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, স্বাধীন বিচার ব্যবস্থায় বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার হস্তক্ষেপ করে না। এ মামলায় ১৬ জনের সবার ফাঁসি হয়েছে। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সভাপতিও ছিলেন। তাকে চার্জশিট থেকে বাদ দেওয়া হয়নি। তিনিও ফাঁসির রায় পেয়েছেন। এ থেকে প্রমাণ হয় অপরাধী যেই হোক তার নিস্তার নেই।

এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার দলের নেতা ও স্বজনরা তার অসুস্থতার যে চিত্র তুলে ধরেন, চিকিৎসকদের অবজারভেশন (পর্যবেক্ষণ) তেমন নয়। খালেদার শারীরিক অবস্থা নিয়ে তারা যতটা না উদ্বিগ্ন, তার চেয়ে এ অসুস্থতাকে নিয়ে তারা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করতে চায়। এটা নিয়ে তাদের দুরভিসন্ধি রয়েছে।

তিনি বলেন, দুই বছর হয়ে গেল খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য চোখে পড়ার মতো কোনো আন্দোলন করতে পারেনি বিএনপি। তারা আন্দোলন করে বের করতে পারলে করুক আমার আপত্তি নেই। তারা শুধু হাঁকডাক দিতে পারে, আন্দোলন করতে পারে না।

সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, একজন রাশেদ খান মেননের জন্য ১৪ ভাঙতে পারে না। বিষয়টি এখন আলাপ-আলোচনার মধ্যে রয়েছে।

রোহিঙ্গাদের বিষয়ে তিনি বলেন, তাদের চলে যেতে হবে। আন্তর্জাতিক চাপ বাড়ছে, ক্রমাগত বাড়ছে। চীন এবং ভারত থেকে চাপ আসছে। সব দিক থেকে মিয়ানমার সরকার চাপে রয়েছে।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম, ফেনী ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম, ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী প্রমুখ।