রাজধানীতে বড় ভাইয়ের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডায় নিজের পেটেই ছুরি চালালেন যুবক|177447|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ অক্টোবর, ২০১৯ ২০:২৪
রাজধানীতে বড় ভাইয়ের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডায় নিজের পেটেই ছুরি চালালেন যুবক
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীতে বড় ভাইয়ের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডায় নিজের পেটেই ছুরি চালালেন যুবক

রাজধানীর ভাষানটেকে এক ফল বিক্রেতাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে আরেক ফল বিক্রেতা। নিহত ব্যক্তির নাম নজরুল ইসলাম (৪৫)। অপরদিকে যাত্রাবাড়ীতে বড় ভাইয়ের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডার সময় শামীম (২২) নামে এক যুবক নিজের পেটে ছুরি চালিয়েছেন বলে পরিবার ও পুলিশ জানিয়েছে। এছাড়া মাতুয়াইলের একটি বাসার ছাদ থেকে নিচে পড়ে আব্দুস সালাম (৫৪) নামের এক ব্যক্তি মারা গেছেন।

ভাষানটেক থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম দেশ রূপান্তরকে বলেন, নজরুল ইসলাম ভাষানটেকের পুনর্বাসন কেন্দ্র এলাকায় স্ত্রী মার্জিয়া বেগম ও দুই মেয়ে নিয়ে থাকতেন। সেখানেই তিনি ফল বিক্রি করেন। তার পাশেই বাচ্চু নামে আরেক ব্যক্তিও ফল বেচাকেনা করত। বাচ্চুর কাছে অনেকে পাওনা টাকা পেতেন। পাওনাদাররা বিভিন্ন সময় বাচ্চুর খোঁজে পুনর্বাসন কেন্দ্রের সামনে আসত। কিন্তু তাকে পাওয়া যেত না। পাওনাদার বাচ্চুর খোঁজে আসেন। বাচ্চুকে না পেয়ে নজরুল ইসলামের কাছে তার বাসার খোঁজ করেন। নজরুল পাওনাদারকে বাচ্চুর বাসা দেখিয়ে দেন। এতে বাচ্চু নজরুলের ওপর ক্ষেপে যান এবং সবার সামনে নজরুলকে মেরে ফেলার হুমকি দেন। মঙ্গলবার রাতে ফোন করে নজরুলকে বাসা থেকে নিচে নামতে বলে বাচ্চু। নজরুল নিচে নামলে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ঘাড়ে কোপ মেরে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। ঘাতক বাচ্চুকে ধরার চেষ্টা চলছে। আশা করি অল্প সময়ের মধ্যে তাকে ধরা সম্ভব হবে।  

নিহতের স্ত্রী মার্জিয়া বেগম জানান, রাতে বাচ্চু কল করলে সরল মনে নজরুল নিচে নামে। কিন্তু নিচে যাওয়ার পরপরই নজরুলের চিৎকারে তারা নিচে গিয়ে দেখেন নজরুলের সারা গা বেয়ে রক্ত পড়ছে। সাথে সাথে তাকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

বুধবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে নজরুলের লাশ গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহে নেয়া হয়। এই ঘটনায় বাদী হয়ে বাচ্চুকে একমাত্র আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বলে জানান মার্জিয়া।

নিজের পেটে নিজেই ছুরিকাঘাত: যাত্রাবাড়ীতে বড় ভাইয়ের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডার সময় শামীম নামে এক যুবক নিজের পেটে ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

শামীমের স্ত্রী সোনিয়া আক্তার জানান, সাত মাস আগে তাদের বিয়ে হয়। শামীম একেক সময় এক কাজ করত। প্রায়ই মাদক সেবন করত। এ নিয়ে পারিবারিক সমস্যা লেগেই ছিল। সোমবার ভাশুরের (শামীমের বড় ভাই) সঙ্গে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে রেগে শামীম নিজের পেটে নিজেই ছুরি ঢুকিয়ে দেন। পরে রাতে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় তার মৃত্যু হয়।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, শামীম পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার পশ্চিম লক্ষ্মীপুর গ্রামের হাবিব মৃধার ছেলে। যাত্রাবাড়ীর কাজলার নয়ানগর এলাকায় থাকতেন।

মাতুয়াইলে বাড়ির ছাদ থেকে পড়ে একজনের মৃত্যু: রাজধানীর মাতুয়াইলের একটি বাসার ছাদ থেকে নিচে পড়ে আব্দুস সালাম (৫৪) নামের এক ব্যক্তি মারা গেছেন। তিনি দীর্ঘদিন সৌদি প্রবাসী ছিলেন। মাতুয়াইল কেরানীপাড়ায় নিজের তিন তলা ভবনে স্ত্রী ও চার সন্তান নিয়ে থাকতেন আব্দুস সালাম।

নিহতের চাচাতো ভাই নুরুল ইসলাম দেশ রূপান্তরকে জানান, তিন তলা ভবনের ছাদ থেকে নিচে পড়ে যান আবদুস সালাম। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসলে বুধবার দুপুর ১টায় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী ইনচার্জ (এএসআই) আব্দুল খান তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।