বাংলাদেশে বিনিয়োগ যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি লাভবান: প্রধানমন্ত্রী|177550|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩১ অক্টোবর, ২০১৯ ০১:৩১
বাংলাদেশে বিনিয়োগ যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি লাভবান: প্রধানমন্ত্রী
বিশেষ প্রতিনিধি

বাংলাদেশে বিনিয়োগ যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি লাভবান: প্রধানমন্ত্রী

বিদেশি ক্রেতা ও বিনিয়োগকারীদের দেশের বিভিন্ন শিল্প খাতে, বিশেষ করে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের শিল্পে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগে যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি লাভবান হবেন।

বুধবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘তৃতীয় বাংলাদেশ লেদার ফুটওয়্যার অ্যান্ড লেদার গুডস ইন্টারন্যাশনাল সোর্সিং শো-২০১৯’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘সাভারে চামড়াশিল্প নগরীর বর্ধিত প্রকল্পে আন্তর্জাতিক মান ও এলডবিস্নউজি সনদ অর্জন উপযোগী কম্পোজিট চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকা কারখানা গড়ে তোলার জন্য কমপক্ষে ১৫০ একর জায়গা বরাদ্দ দেব এবং ইতিমধ্যে আমরা সে জায়গা দেখেছি।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চামড়াজাত পণ্য থেকে কাি•ক্ষত রপ্তানি আয়ের লক্ষ্য অর্জনে আগামী পাঁচ বছর এ খাতে আর্থিক প্রণোদনা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকা শিল্প থেকে কাঙ্ক্ষিত রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য আর্থিক প্রণোদনা আরও অন্তত আগামী পাঁচ বছর অব্যাহত থাকবে।’

চামড়া খাতে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার লক্ষ্য নিয়ে এলএফএমইএবি ও সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় যৌথভাবে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিন দিনব্যাপী এই ‘সোর্সিং শো’র আয়োজন করেছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন ও লেদার ফুটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (এলএফএমইএবি) সভাপতি সাইফুল ইসলাম অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

সরকারপ্রধান বলেন, গত অর্থবছরে চামড়া খাত থেকে প্রায় ১ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় হয়েছে। ক্রমবর্ধমান কাঁচা চামড়া সরবরাহের পুরোটাই ফিনিশড প্রোডাক্ট তৈরি করে রপ্তানি করতে পারলে আমরা অনায়াসে ২০২২ সালের মধ্যে এ খাত থেকে ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি আয় করতে সক্ষম হব।

প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের প্রায় সাড়ে ১০ বছরের শাসনামলে দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের খণ্ড চিত্র তুলে ধরে বলেন, ‘২০০৫-০৬ অর্থবছরে আমাদের রপ্তানি আয় যেখানে ১০ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছিল তা ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৪ গুণের বেশি বৃদ্ধি পেয়ে ৪৬ দশমিক ৮৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। অন্যদিকে একই সময়ে আমদানি ১৪ দশমিক ৭ বিলিয়ন থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৬২ দশমিক ৭২ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে।

তিনি বলেন, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২০০৫-০৬ অর্থবছরের ৩ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে বর্তমানে ৩৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে। তিনি বলেন, ২০০৫-০৬ অর্থবছরে আমাদের বিনিয়োগ ছিল জিডিপির ২৬ শতাংশ। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এর পরিমাণ হয়েছে ৩১ দশমিক ৫ শতাংশ।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে এখন উন্নয়নের বিস্ময়। কারণ এ প্রশ্নটা অনেকেই আমাকে সব সময় করেন যে এই অল্প সময়ের মধ্যে আমরা কীভাবে এই উন্নয়নটা করলাম।’

গত নির্বাচনী ইশতেহারে তার দল আওয়ামী লীগ রপ্তানি প্রবৃদ্ধির মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও জাতীয় আয় বৃদ্ধির বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে উল্লেখ করে দলটির সভাপতি বলেন, এ লক্ষ্যে রপ্তানি নীতি ২০১৮-২১ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে এবং এ অর্থবছরে ৩৬টি পণ্যে ২০ শতাংশ পর্যন্ত নগদ সহায়তাসহ অন্যান্য নীতি সহায়তা অব্যাহত রয়েছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তা বৃদ্ধি করা হয়েছে। ফলে রপ্তানিতে আয় ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।