গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন করে পাকিস্তান সেনাবাহিনী: আইএসপিআর|178063|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২ নভেম্বর, ২০১৯ ১৮:২৪
গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন করে পাকিস্তান সেনাবাহিনী: আইএসপিআর
অনলাইন ডেস্ক

গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন করে পাকিস্তান সেনাবাহিনী: আইএসপিআর

পাকিস্তানে কাউকে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র আইএসপিআরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর।

শুক্রবার গভীর রাতে আইএসপিআরের মহাপরিচালক এ হুঁশিয়ারি জানিয়ে বলেন, পাকিস্তানের সেনাবাহিনী একটি নিরপেক্ষ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান। সব সময়ই তারা সংবিধানের আওতায় গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন দেয়।

উল্লেখ্য, শুক্রবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকারকে অবৈধ দাবি করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের (জেইউআই-এফ) প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান এই সরকারকে সমর্থন না দিতে ‘রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর’ প্রতি আহ্বান জানান। তিনি ইমরান খানকে পদত্যাগের জন্য দু’দিনের আলটিমেটাম দিয়ে সেনাবাহিনীর দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, ওই সময়ের পরে যদি ইমরান খান পদত্যাগ না করেন এবং তাকে ‘প্রতিষ্ঠানটি’ সুরক্ষা দেয়ার চেষ্টা করে, তাহলে ওই ‘প্রতিষ্ঠানের’ বিষয়ে জনমত গঠন করা হবে। বিরোধীরা অবাধে এই জনমত গঠন করবে।

মাওলানা ফজলুর রহমানের ওই বক্তব্যের জবাবে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে জেনারেল আসিফ গফুর বলেন, মাওলানা ফজলুর রহমান একজন সিনিয়র রাজনীতিক। তিনি কোন প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে কথা বলেছেন তা তার পরিষ্কার করা উচিত। পাকিস্তানের সেনাবাহিনী রাষ্ট্রীয় একটি নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান। তারা সব সময়ই গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন করে। তাই কাউকেই দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না। কারণ, দেশ কোনো বিশৃঙ্খলা সহ্য করার সক্ষমতা রাখে না।

এ সময় তিনি পাকিস্তান তার পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলীয় ফ্রন্টে যে নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জের মুখে রয়েছে তার উল্লেখ করে বলেন, পাকিস্তান ২০ বছর সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। অসংখ্য আত্মত্যাগের বিনিময়ে দেশে শান্তি পুনঃস্থাপিত হয়েছে। কষ্টার্জিত এই শান্তি বিঘ্ন করতে দেয়া হবে না কাউকে। খাইবার-পখতুনখাওয়ার জনগণ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সাহসী যুদ্ধ করেছেন। এখন তাদের শান্তির সুফল নেয়ার সময়।

মাওলানা ফজলুর সমালোচনার জবাবে মেজর জেনারেল গফুর আরও বলেন, নির্বাচনে সেনাবাহিনী তার সাংবিধানিক দায়িত্ব পূর্ণভাবে পালন করেছে। যদি বিরোধীদের নির্বাচনের ফল নিয়ে অভিযোগ থাকে তাহলে তারা রাস্তায় অভিযোগ তোলার পরিবর্তে সংশ্লিষ্ট ফোরামে যেতে পারেন। গণতন্ত্রে গণতান্ত্রিক ইস্যুগুলোর সমাধান হওয়া উচিত।