সেরা শাকিব-তিশা-জয়া-সাইমন|179210|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
সেরা শাকিব-তিশা-জয়া-সাইমন

সেরা শাকিব-তিশা-জয়া-সাইমন

অবশেষে অপেক্ষার অবসান ঘটল। গতকাল বৃহস্পতিবার ২০১৭ ও ’১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেছে তথ্য মন্ত্রণালয়। ২৮টি বিভাগে পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে।

২০১৭ সালে আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন দেশবরেণ্য অভিনয়শিল্পী এ টি এম শামসুজ্জামান ও সুজাতা। সেরা চলচ্চিত্র দীপংকর দীপন পরিচালিত ‘ঢাকা অ্যাটাক’। সেরা পরিচালকের পুরস্কার পেয়েছেন ‘গহীন বালুচর’ সিনেমার পরিচালক বদরুল আনাম সৌদ। সেরা অভিনেতা হয়েছেন যৌথভাবে এ সময়ের ঢালিউডের শীর্ষ দুই নায়ক শাকিব খান ও আরিফিন শুভ। হাসিবুর রেজা কল্লোল পরিচালিত ‘সত্তা’ চলচ্চিত্রের জন্য শাকিব খানকে ও দীপংকর দীপন পরিচালিত ‘ঢাকা অ্যাটাক’ চলচ্চিত্রের জন্য আরিফিন শুভকে নির্বাচিত করা হয়েছে। সেরা অভিনেত্রী নির্বাচিত হয়েছেন নুসরাত ইমরোজ তিশা। তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘হালদা’ সিনেমায় অনবদ্য অভিনয়ের জন্য তাকে পুরস্কৃত করতে যাচ্ছে রাষ্ট্র। ২০১৭ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের মাধ্যমে শাকিব খান তৃতীয়বারের মতো সেরা নায়ক হিসেবে নির্বাচিত হলেন। এর আগে ভালোবাসলে ঘর বাঁধা যায় না, খোদার পরে মা এবং আরও ভালোবাসবো তোমায় সিনেমার জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিলেন। অন্যদিকে আরিফিন শুভ প্রথমবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন। তিশা এর আগে অস্তিত্ব মুভির জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিলেন। হালদার মাধ্যমে তিনি দ্বিতীয়বার পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন। ‘হালদা’ সিনেমার জন্য শ্রেষ্ঠ পাশর্^ অভিনেত্রী হয়েছেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী রুনা খান। তিনিও এই পুরস্কার প্রথমবারের মতো পাচ্ছেন। এ পুরস্কার যৌথভাবে পাচ্ছেন কিংবদন্তি অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা। তিনি ‘গহীন বালুচর’ সিনেমার জন্য পুরস্কারটি পাচ্ছেন। এই সিনেমার জন্য শ্রেষ্ঠ পাশর্^ অভিনেতা শাহাদাৎ হোসেন। শ্রেষ্ঠ খল অভিনেতা জাহিদ হাসান (হালদা)। এই সিনেমার জন্য সেরা চিত্রনাট্যকার হয়েছেন তৌকির আহমেদ। ‘সত্তা’ সিনেমার ‘না জানি কোন অপরাধে’ গানটির জন্য সেরা গায়িকার পুরস্কার পাচ্ছেন মমতাজ। একই সিনেমার গান ‘তোর প্রেমেতে অন্ধ’ গানটির জন্য সেরা গায়ক হয়েছেন জেমস। এই গানের জন্যই সুরকার হিসেবে পুরস্কার পাচ্ছেন বাপ্পা মজুমদার।

আর ২০১৮-তে আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন দেশবরেণ্য দুই চলচ্চিত্র অভিনেতা প্রবীর মিত্র ও আলমগীর। সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার পেয়েছে সাইফুল ইসলাম মান্নু পরিচালিত ‘পুত্র’ সিনেমাটি। সেরা পরিচালকের পুরস্কার পেয়েছে ‘জান্নাত’ সিনেমার পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। একই সিনেমার জন্য সেরা কাহিনীকার হয়েছেন সুদীপ্ত সাঈদ খান। সেরা অভিনেতা হয়েছেন যৌথভাবে ফেরদৌস (পুত্র) ও সাইমন সাদিক (জান্নাত)। সাইমন এই প্রথম জাতীয় পুরস্কার পাচ্ছেন। তবে ফেরদৌস তার প্রজন্মের মধ্যে সবচেয়ে বেশিবার এ পুরস্কার অর্জন করেছেন। ‘দেবী’ সিনেমায় অনবদ্য অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রী হয়েছেন জনপ্রিয় তারকা জয়া আহসান। এর আগে তিনি ‘গেরিলা’, ‘চোরাবালি’ ও ‘জিরো ডিগ্রি’ সিনেমায় এ পুরস্কার পেয়েছেন। এবার চতুর্থবারের মতো জাতীয় পুরস্কার পাচ্ছেন। সেরা সিনেমা হয়েছে পুত্র আর সেরা প্রামাণ্যচিত্র নায়করাজ রাজ্জাককে নিয়ে নির্মিত ‘রাজাধিরাজ নায়করাজ’। সেরা পার্শ^ চরিত্রে পুরস্কার পেয়েছেন আলীরাজ (জান্নাত) ও সুচরিতা (মেঘকন্যা)। শ্রেষ্ঠ খল অভিনেতা সাদেক বাচ্চু (একটি সিনেমার গল্প)। জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিম ‘কমলা রকেট’ সিনেমার জন্য পাচ্ছেন শ্রেষ্ঠ কৌতুক অভিনেতার পুরস্কার। যৌথভাবে পাচ্ছেন আফজাল শরিফ (পবিত্র ভালোবাসা)।

প্রথমবার চলচ্চিত্রের গানে সুর করে সেরা সুরকারের পুরস্কার পেয়েছেন উপমহাদেশের কিংবদন্তি শিল্পী রুনা লায়লা। তার সেই গান ‘গল্প কথার ওই কল্পলোকে’তে কণ্ঠ দিয়ে প্রথমবার সেরা গায়িকা হলেন জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী আঁখি আলমগীর। যৌথভাবে এই পুরস্কার পাচ্ছেন নন্দিত গায়িকা সাবিনা ইয়াসমিন। ‘পুত্র’ সিনেমার ‘ভুলে মান অভিমান’ গানটির জন্য এ পুরস্কার পান তিনি। সেরা সংগীত পরিচালক হয়েছেন ইমন সাহা (জান্নাত) সিনেমার জন্য।

জুরি বোর্ডের সদস্য ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব টেলিভিশন ফিল্ম অ্যান্ড ফটোগ্রাফির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শফিউল আলম ভূঁইয়া, একুশে টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মনজুরুল আহসান বুলবুল, চলচ্চিত্র অভিনেত্রী কোহিনূর আক্তার সুচন্দা, চলচ্চিত্র অভিনেতা ও প্রযোজক এমএ আলমগীর, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার, চিত্রগ্রাহক পংকজ পালিত ও সংগীত পরিচালক সুজেয় শ্যাম।