দাম কমছে সবজি মাছের|179475|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
দাম কমছে সবজি মাছের
চট্টগ্রাম ব্যুরো

দাম কমছে সবজি মাছের

অভিযানের পর চট্টগ্রামের পাইকারি ও খুচরা বাজারে সব ধরনের পেঁয়াজের দাম কেজিতে কমেছে ৩০-৪০ টাকা। সবজি ও মাছের সরবরাহ বাড়ায় দামও কমেছে। কয়েকটি সবজির দাম চড়া থাকলেও বেশির ভাগের দাম ৪০-৫০ টাকায় নেমেছে। সপ্তাহ ব্যবধানে ইলিশের দাম কেজিতে কমেছে ৪০০ টাকা। গতকাল শুক্রবার নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ তথ্য জানা গেছে।

রিয়াজউদ্দিন বাজারে খুচরায় সপ্তাহজুড়ে পেঁয়াজ ১৩০-১৪০ টাকা বিক্রি হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে কয়েক ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়। এরপর গতকাল একই পেঁয়াজ ৩০-৪০ টাকা কমে বিক্রি হয়েছে কেজি ৯০-১০০ টাকায়। এদিন মিসরের পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৭৫ টাকা কেজি। মিসরের পেঁয়াজের চাহিদা কম বলে জানান বিক্রেতারা। মসলাজাতীয় পণ্য আদা সপ্তাহের ব্যবধানে ১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা। রসুন বিক্রি হচ্ছে কেজি ১৩০ টাকায়, গত সপ্তাহে ছিল ১৪০ টাকা। রিয়াজউদ্দিন বাজারে খুচরা বিক্রেতা মো. আলী জানান, ‘পাইকারিতে দাম কমেছে, তাই আমরা কম দামেই কিনেছি। আগামী সপ্তাহে আরও দাম কমবে পেঁয়াজের। খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজবোঝাই ট্রাকের ভিড় বাড়ছে।’

তিন সপ্তাহজুড়ে মাছের বাজার ছিল চড়া। সব মাছের সরবরাহ বাড়ায় গতকাল বক্সিরহাট বাজারে এক কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হয়েছে ৮০০ টাকায়, গত সপ্তাহে ছিল ১২০০ টাকা। এদিন ৪০০-৬০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হয় ৪০০-৫৫০ টাকা দরে।

গতকাল তেলাপিয়া মাছ গত সপ্তাহের চেয়ে কেজিতে ৪০ টাকা কমে বিক্রি হয় ১৩০ টাকায়। রুই বিক্রি হয় ২৩০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ছিল ২৭০ টাকা। পাবদা বিক্রি হয়েছে কেজি ৫০০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০০ টাকা। চিংড়ি-রূপচাঁদা আকার ও মানভেদে দাম ২০০ কমে বিক্রি হচ্ছে কেজি ৪০০-৭০০ টাকায়। একই মাছ গত দুই মাস বিক্রি হয়েছে ৬০০-৯০০ টাকা দরে। গতকাল বেলে মাছ ৪০০, পোপা ২৫০, সুরমা ২০০, মৃগেল ১৮০, কই ২৫০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

বক্সিরহাট বাজারে মাছ বিক্রেতা অসিত দাস বলেন, অনেক দিন পর বাজার জমেছে। ট্রলারগুলো ইলিশের পাশাপাশি অন্যান্য সামুদ্রিক মাছ আনায় দাম কমতে শুরু করেছে। এ ছাড়া পুকুর ও নদীর মাছের ভালো সরবরাহ রয়েছে, বিক্রিও ভালো হচ্ছে। সোনালি যান্ত্রিক মৎস্য শিল্প সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাবুল সরকার বলেন, গত সপ্তাহে ফিশারিঘাট বাজারে ৫০টি ইলিশ বোঝাই ট্রলার ভিড়েছে। প্রতিটি ট্রলারে ৪ টনের মতো মাছ ছিল। সে হিসাবে বাজারে প্রায় ২০০ টন মাছ এসেছে গত সপ্তাহে। আবহাওয়া অনুকূল থাকলে ইলিশসহ সব মাছের দাম আরও কমবে।

গতকাল শুক্রবার রিয়াজউদ্দিন বাজার, সদরঘাট, চকবাজার ঘুরে দেখা যায়, বেশির ভাগ সবজির দাম কমেছে। শিম, কাঁকরোল, টমেটো ছাড়া বেশির ভাগ সবজি কেজিপ্রতি কমেছে ৫-১৫ টাকা। বাজারে বাঁধাকপি ১০ টাকা কমে ২৫ টাকা ও ফুলকপি ৩০-৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া প্রতিটি লাউ ৩০, শসা ও ঝিঙা ৩০ টাকা কেজি বিক্রি হয়েছে। ১৫ টাকা কমে প্রতি কেজি মুলা বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা দরে। গত সপ্তাহে ৭০ টাকায় বিক্রি হওয়া কাঁকরোল ২০ টাকা কমে কেজি ৫০ টাকা। বেগুন ও ঢেঁড়স বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা দরে, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০ টাকা। এ ছাড়া সপ্তাহের ব্যবধানে ২৫ টাকা কমে পটোল বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা দরে। কিন্তু টমেটো ও শিমের দাম এখনো ৭০-৮০ টাকার মধ্যেই ঘুরপাক খাচ্ছে।

বিক্রেতা মো. সাইফুল ইসলাম জানান, উত্তরবঙ্গের সবজি আসা শুরু করেছে। চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া, চন্দনাইশ, পটিয়া থেকে সব ধরনের সবজির ট্রাক আসছে নিয়মিত। দাম আরও কমতে পারে যদি কোনো বৃষ্টি কিংবা বন্যা না হয়।

ব্যাংক কর্মকর্তা বেহেরুজ আবরার বলেন, পেঁয়াজের দাম ১০০ টাকার নিচে নেমেছে। অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। জরিমানা করলে সব ঠিক হচ্ছে।