এখনো নিরাপদে দুবলার চর|179582|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৯ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৫৯
এখনো নিরাপদে দুবলার চর
আবু হোসাইন সুমন, মোংলা

এখনো নিরাপদে দুবলার চর

ঘূ্র্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে তেমন প্রভাব এখনো পড়েনি বঙ্গোপসাগর পাড়ের সুন্দরবনের দুবলার চরে। রাত ৮টার পর থেকে দিনের তুলনায় সামান্য বেশি বৃষ্টিপাত ও হালকা-মাঝারি ঝড়ো হাওয়া বয়ে গেলেও তাতে তেমন কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। 

পূর্ব-সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. মাহমুদুল হাসান রাত সোয়া ১১টার দিকে জানান, দিনের বেলায় থেমে থেমে বৃষ্টি হলেও রাত ৮টার পর থেকে মাঝারি বাতাস ও বৃষ্টি শুরু হয়। সাগর পাড়ে সাধারণত সব সময়েই এমন হালকা মাঝারি বাতাস হয়ে থাকে। 

তিনি জানান, রাতের বৃষ্টি-বাতাসে চরের কোথাও তেমন ক্ষতি হয়নি। জলোচ্ছ্বাস বা পানির চাপও বাড়েনি মোটেও। কারণ সেখানে এখন ভাটা চলছে। 

তিনি বলেন, রাত ১১টার দিকে দুবলা, আলোরকোল, মেহেরআলী, শেলা ও হিরণ পয়েন্টের বনবিভাগের দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, থেমে থেমে বৃষ্টি-বাতাস ছাড়া বড় ধরনের কিছু হয়নি। এলাকার লোকজন ক্ষয়ক্ষতি ছাড়া নিরাপদেই রয়েছেন। 

এদিকে রাত ১১টায় আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আয়েশা খানম বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বর্তমানে বঙ্গোপসাগরের পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের দক্ষিণপশ্চিম এলাকায় অবস্থান করছে। ঘূর্ণিঝড়টি উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়বে। মধ্যরাত নাগাদ সুন্দরবনের নিকট দিয়ে উপকূল অতিক্রম করবে।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১০০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবেই উত্তাল রয়েছে।