ডিসেম্বর উদযাপনের মধ্যে কাটবে|181129|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
ডিসেম্বর উদযাপনের মধ্যে কাটবে

ডিসেম্বর উদযাপনের মধ্যে কাটবে

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ও কম্পোজার বাপ্পা মজুমদার। ২০১৭ সালের সেরা সুরকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছেন তিনি। প্রথম সন্তানের বাবা হতে যাচ্ছেন। সব মিলিয়ে দারুণ সময় কাটাচ্ছেন।

সমসাময়িক বিষয়ে দেশ রূপান্তরের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি প্রথম সন্তানের বাবা...

আসলে বাবা হওয়ার অনুভূতি ভাষায় বা এক্সপ্রেশনে বোঝানোর মতো নয়। তাও প্রথম সন্তানের বাবা হতে যাচ্ছি। এর চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই। চিকিৎসক বলেছেন, সামনের মাসেই আমি কন্যাসন্তানের বাবা হব। এখন নতুন অতিথির আগমনের অপেক্ষায় আমি আর তানিয়া (স্ত্রী অভিনেত্রী তানিয়া হোসেন)। প্রথম যখন বাবা হওয়ার কথা জানতে পারলাম, তখন কেন জানি বাবার কথা খুব মনে পড়ছিল। আমার পৃথিবীতে আসার খবরে হয়তো তিনিও এমন খুশি হয়েছিলেন। এখন বাবা-মা (সংগীতজ্ঞ বারীন মজুমদার ও ইলা মজুমদার) নেই। নিজেকে খুব দুর্ভাগা মনে হচ্ছে। কারণ তাদেরকে সন্তানের মুখ দেখাতে পারিনি। কিন্তু সবমিলিয়ে আমরা খুব খুশি।

 

সুরকার হিসেবে জাতীয় পুরস্কার...

আমি নিজেকে একজন মিউজিশিয়ান হিসেবে পরিচয় দিতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। আর একজন মিউজিশিয়ানের কাছে শুধু গান গাওয়াটাই আসল বিষয় নয়। গানে সুর করা, সংগীতায়োজন করা, কখনো কখনো কথা লেখা- সবই মিউজিশিয়ানের কাছে সমান গুরুত্বপূর্ণ। তাই এসব কাজের যে কোনো একটির স্বীকৃতি মানেই পুরো শিল্পীসত্তার

স্বীকৃতি। ‘সত্তা’ সিনেমার ‘না জানি কোন অপরাধে’ গানে সুর করে সেরা সুরকারের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে যাচ্ছি। আমি খুব খুশি। একই গান গেয়ে শ্রেষ্ঠ গায়িকা হচ্ছেন মমতাজ। তাই ভালোলাগাটা আরও বেড়ে গেছে।

উদযাপনের মাস ডিসেম্বর...

আশা করছি আসছে ডিসেম্বর পুরোটাই উদযাপনের মধ্যে কাটবে। এই মাসেই বাবা হব, এ মাসেই জাতীয় পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে হাতে, আবার এ মাসেই আমাদের স্বপ্নের প্রজেক্ট ‘সঞ্জীব চৌধুরী’ প্রকাশ করার পরিকল্পনা রয়েছে। সঞ্জীব চৌধুরী আমার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। তাকে উৎসর্গ করে একটি অ্যালবাম করতে পারছি এটা আমার কাছে অনেক বড় বিষয়। এতে গান

থাকবে ৮টি। একটি গান তার নামেই রয়েছে। লিখেছেন শাহান কবন্ধ। এছাড়া ‘মন দাবাড়–’, ‘মন কারিগর’, ‘প্রবঞ্চনা’- শিরোনামের গান রয়েছে।

আজ গুলশানে...

আজ গুলশানে একটি ইনডোর কনসার্টে গাইব আমি ও আমাদের ব্যান্ড ‘দলছুট’। আমরা মূলত নিজেদের ব্যান্ডের গানই করি। আমার মৌলিক গানও গাওয়া হয় অনুরোধ পেলে। সময়-সুযোগ হলে দু-একটা রবীন্দ্রসংগীত কিংবা লাকী আখন্দের গান গেয়ে তাদের স্মরণ করি। আজও তেমনি একটি আয়োজন থাকবে গানের। এই শো’র প্রস্তুতি নিয়েই ব্যস্ত। এখন তো শীতের সময় চলে আসছে। কয়েক মাস টানা কনসার্টের ব্যস্ততাই থাকবে। দেশের বাইরেও গাইতে যাওয়ার কথা চলছে। সর্বশেষ গেয়েছি কলকাতা ও ভেনিসে।