মুুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে সংগীত সন্ধ্যায় ‘ক্ষ্যাপা বাউল’ |181195|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
মুুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে সংগীত সন্ধ্যায় ‘ক্ষ্যাপা বাউল’
নিজস্ব প্রতিবেদক

মুুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে সংগীত সন্ধ্যায় ‘ক্ষ্যাপা বাউল’

রাজধানীর আগারগাঁওয়ের মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে সংগীত পরিবেশন করল চট্টগ্রামের গানের দল ‘ক্ষ্যাপা বাউল’। গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় বটতলা রঙ্গমেলায় ‘সহজ গানের সন্ধ্যা’ শিরোনামের এই আয়োজন হয়। সন্ধ্যা ৬টা থেকে দলটির শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করে। এ সময় সাংবাদিক সাজু আহমেদ তাদের হাতে স্মারক তুলে দেন। এরপর রঙ্গমঞ্চে বিভাগীয় সম্মাননা প্রদান করা হয় বরিশাল বিভাগের খান দেলোয়ার হোসেনকে। তার হাতে সম্মাননা পদক তুলে দেন নাট্যজন ড. ইনামুল হক। এদিন ভারতের নাটকের দল ‘রঙ্গাশ্রম’ মঞ্চস্থ করে নাটক ‘আমার মুখের আঁচলখানি’। নির্দেশনা দিয়েছেন সন্দ্বীপ ভট্টাচার্য। নাটক শেষে অন্তরালের সম্মাননা পদক দেওয়া হয় মঞ্চের নেপথ্য শিল্পী আবদুল মালেক মিয়াকে।

বশির আহমেদ জয়ন্তীতে সম্মাননা পেলেন ছয় গুণী

বরেণ্য সংগীতশিল্পী, সুরকার ও সংগীত পরিচালক বশির আহমেদের ৮০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত, আবৃত্তি ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে ছয় গুণীকে জানানো হলো সম্মাননা। ১৯৩৯ সালের ১৯ নভেম্বর কলকাতার খিদিরপুরে জন্মগ্রহণ করেন বশির আহমেদ। ২০১৪ সালের এপ্রিলে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

প্রয়াত এই শিল্পীর নামাঙ্কিত এ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সারগাম সাউন্ড স্টেশন। অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ করেন বরেণ্য সংগীতশিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদী, সুরকার আজাদ রহমান, সংগীতশিল্পী খুরশীদ আলম, গীতিকার গাজী মাযহারুল আনোয়ার ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। এ বছর সম্মাননা প্রদান করা হয় সংগীতশিল্পী ফেরদৌসী রহমান, সুরকার শেখ সাদী খান, গীতিকার শহীদুল্লাহ ফরায়জী, সাংবাদিক নাসির আহমেদ, বাদ্যযন্ত্রশিল্পী চন্দন দত্ত ও মোস্তফা কামাল সৈয়দকে। অনুষ্ঠানে বশির আহমেদের কালজয়ী গান ‘আমাকে পোড়াতে যদি এত লাগে ভালো’, ‘যারে যাবি যদি যা’, ‘অনেক সাধের ময়না আমার’ গানগুলো গেয়ে শোনান শিল্পীরা।