পরীক্ষা দিয়ে ফেরার পথে দুই শিশুকে ট্রাক-কার চাপা|181247|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
পরীক্ষা দিয়ে ফেরার পথে দুই শিশুকে ট্রাক-কার চাপা

পরীক্ষা দিয়ে ফেরার পথে দুই শিশুকে ট্রাক-কার চাপা

পরীক্ষা দিয়ে ঘরে ফেরার মুখে কিশোরগঞ্জে ট্রাকচাপায় এবং দিনাজপুরের কাহারোলে প্রাইভেটকারচাপায় নিহত হয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষার্থী দুই শিশু। এ ছাড়া খুলনার তেরখাদায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুলগামী ছয় বছর বয়সী শিশু, রাজধানীর মিরপুরে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় আট বছর বয়সী শিশু, রাঙ্গামাটিতে ট্রাকের ধাক্কায় কলেজছাত্রী ও শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জে নসিমনের ধাক্কায় অটোরিকশার যাত্রী নারী নিহত হয়েছেন। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর

কিশোরগঞ্জে ট্রাকচাপায় লাজুক আক্তার (১১) নামে এক পিইসি পরীক্ষার্থী নিহত হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুর দেড়টার দিে

সদর উপজেলার মারিয়া নামক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত লাজুক আক্তার মারিয়া গ্রামের ইমরান মিয়ার মেয়ে এবং মারিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিইসি পরীক্ষার্থী ছিল।

বাবা ইমরান মিয়া জানান, দুপুরে লাজুক পিইসি পরীক্ষার শেষে ৮ সহপাঠীর সঙ্গে ব্যাটারিচালিত একটি অটোরিকশা দিয়ে বাড়িতে ফিরছিল। পথে ৬ পরীক্ষার্থী নেমে যায়। পরে বাড়ির কাছে অটো থেকে নামার সময় পেছন থেকে একটি ট্রাক এসে অটোরিকশাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই লাজুক আক্তার মারা যায়। এ সময় রাহাতুল মিয়া (১১) নামে আরেক পরীক্ষার্থী আহত হয়। তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করান।

এদিকে ঘাতক ট্রাকসহ চালককে আটক করে স্থানীয় জনতা। খবর পেয়ে পুলিশ এসে ট্রাকসহ চালককে থানায় নিয়ে যায়। কিশোরগঞ্জ থানার ওসি আবু বাক্কার সিদ্দিক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় পিইসি পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে আসমা খাতুন (১১) নামে এক পরীক্ষার্থী প্রাইভেটকারচাপায় নিহত হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুর দেড়টার দিকে ব্যাটারিচালিত অটো ভ্যানযোগে পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও সড়কের এগারোমাইল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আসমা খাতুন দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার ইটুয়া গ্রামের দরিদ্র ভ্যানচালক মন্টু মিয়ার মেয়ে। আসমা ইটুয়া আদিবাসী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে কাহারোল উপজেলার পূর্ব মল্লিকপুর এম উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে পিইসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছিল।

পূর্ব মল্লিকপুর এম উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রের হল সুপার মেরাজুল ইসলাম জানান, এগারোমাইল নামক স্থানে ভ্যান থেকে নেমে রাস্তা পার হওয়ার সময় দিনাজপুর থেকে ঠাকুরগাঁওগামী একটি প্রাইভেটকার তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এই দুর্ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ লোকজন এক ঘণ্টা দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও সড়ক অবরোধ করে রাখে। ঠাকুরগাঁও থানার ওসি মনোজ কুমার রায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

খুলনায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় শাহিম (৬) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তেরখাদা উপজেলার কাটেঙ্গা গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শাহিম ওই গ্রামের গণি মোল্লার ছেলে। এ ঘটনায় এলাকাবাসী মোটরসাইকেলচালক তুষার রায় (২০) ও রাজ মোহনকে (১৮) আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

তেরখাদা থানার ওসি মো. সালেকুজ্জামান বলেন, সকালে বাইসাইকেল নিয়ে তেরখাদা কিন্ডারগার্টেনে যাওয়ার পথে মোটরসাইকেল সেটিকে ধাক্কা দেয়।

রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশাকে ট্রাক আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন রাঙ্গামাটি সরকারি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের ১ম বর্ষের এক ছাত্রী। এ সময় আহত হয়েছেন আরও চারজন। রবিবার সকালে সাপছড়ি ইউনিয়নের শালবাগান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শিক্ষার্থীর নাম অসিনচিং মারমা। তিনি কলেজের অর্থনীতি সম্মান শ্রেণির ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন বলে নিশ্চিত করেছেন রাঙ্গামাটি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মঈনউদ্দিন। আহতরা হলেন শীলামনি চাকমা (২৬), লাকী আক্তার (৪৫), তানভীর (২) ও দুলাল মিয়া (৬০)।

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলায় নসিমনের ধাক্কায় অটোরিকশার যাত্রী এক নারী নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন। গতকাল রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ রামভদ্রপুর মোল্লাবাড়ির মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ওই নারীর নাম রাজিয়া বেগম (৫৫)। উপজেলার ছয়গাঁও গ্রামের শাহাবুদ্দিন মুন্সীর স্ত্রী তিনি। রাজধানীর মিরপুরে কমার্স কলেজের সামনের সড়কে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় হাফেজ (৮) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রবিবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

শাহ আলী থানার ওসি সালাউদ্দিন মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রবিবার সকালে কমার্স কলেজের সামনে মিল্কভিটার কাভার্ড ভ্যানের চাপায় ঘটনাস্থলেই হাফেজের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনার পর কাভার্ড ভ্যান জব্দ করা হলেও চালক পালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় স্থানীয় লোকজন রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করে।

ওসি আরও বলেন, মৃত হাফেজ মিরপুর-১ ঝিলপাড় বস্তিতে পরিবারের সঙ্গে থাকত। তার মায়ের নাম পাখি আক্তার। তিনি ঝিলপাড় বস্তিতে পিঠা বিক্রি করেন।