সেঞ্চুরিতে প্রত্যাবর্তন ওয়ার্নারের|182321|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
সেঞ্চুরিতে প্রত্যাবর্তন ওয়ার্নারের
ক্রীড়া ডেস্ক

সেঞ্চুরিতে প্রত্যাবর্তন ওয়ার্নারের

গত অ্যাশেজে ১০ ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ৯৫ রান করেছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। নিষেধাজ্ঞা থেকে তার ফিরে আসাটা ছিল বিভীষিকাময়। কিন্তু দেশের মাটিতে তার ফিরে আসা কিন্তু অন্যরকম। সেঞ্চুরি-সেঞ্চুরিতে রাঙিয়েছেন বল ট্যাম্পারিংয়ের পর ঘরের মাঠে নতুন শুরু। পাকিস্তানের বিপক্ষে তেমনই এক ইনিংসে আবার ফিরে আসার রঙিন গল্প লিখলেন ওয়ার্নার। ব্রিসবেনে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে অপরাজিত আছেন ১৫১ রানে। তার ব্যাটে ১ উইকেটে ৩১২ রান তুলেছে অস্ট্রেলিয়া। প্রথম ইনিংসে তাদের লিড ৭২ রানের।

অ্যাশেজের পর নতুন মৌসুম দিয়ে শুরু অস্ট্রেলিয়ান গ্রীষ্ম। যাতে নতুন করে শুরুর চ্যালেঞ্জ ছিল ওয়ার্নারের। নিষেধাজ্ঞার পর প্রথম ঘরের মাঠে খেলতে নেমে গত অক্টোবরে শেফিল্ড শিল্ডে সেঞ্চুরি করেন ওয়ার্নার। সেটিও ছিল ব্রিসবেনে। পরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি দিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের নতুন জীবন শুরু করেন অজি ওপেনার। দুর্দান্তভাবে ওই প্রথম ম্যাচেই সেঞ্চুরি দিয়ে শুরু। এরপর পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে নিষেধাজ্ঞার পর ঘরের মাঠে প্রথম ব্যাট হাতে নামা। আর এবারও সেঞ্চুরিতেই শুরু। ওয়ার্নারের অসাধারণ ইনিংসটি দেড়শ ছাড়িয়েছে। ক্যারিয়ারের ২২তম সেঞ্চুরি করে ১৫১ রানে অপরাজিত আছেন এই ওপেনার। ব্রিসবেনে এটি ওয়ার্নারের চতুর্থ আন্তর্জাতিক টেস্ট সেঞ্চুরি। আর ২০১৭’র পর প্রথম।

পাকিস্তানের প্রথম ইনিংসে করা ২৪০ রানের বিপরীতে ব্যাট করতে নামে অস্ট্রেলিয়া। ওয়ার্নার ও দীর্ঘদিন পর দলে ফেরা জো বার্নস মিলেই এই রানের কাছে চলে যান। দুজনে প্রথম উইকেটে যোগ করেন ২২২ রান। বার্নস ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ৩ রান দূরে থাকতে ফিরে যান। লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহর সাহায্যে প্রথম উইকেট পায় পাকিস্তান। কিন্তু এরপর আর কোনো সাফল্য মেলেনি। প্রথম উইকেট জুটির পর লাবুশেনকে নিয়ে এগিয়ে চলছেন ওয়ার্নার। দুজনে মিলে দ্বিতীয় উইকেটে দলের স্কোরে যোগ করেছেন ৯০ রান।

অবশ্য আরও একটি উইকেট পেতে পারত পাকিস্তান। ওয়ার্নারকেই থামাতে পারত তারা। ওই উইকেটটি আবার মাত্র ১৬ বছর ২৭৯ দিনে অভিষেক করা নাসিম শাহর প্রথম উইকেট হতে পারত। কিন্তু তার বলে ওয়ার্নার উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিলেও সেটা নো বলের কারণে বাতিল হয়ে যায়। তাই ১৬ ওভারে ৬৫ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকতে হয়েছে নাসিমকে। অবশ্য ওয়ার্নারের উইকেট না পেলেও প্রশংসা পেয়েছেন নাসিম। তাকে মোহাম্মদ আমিরের তরুণ রূপ বলে সম্বোধন করেছেন ওয়ার্নার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

পাকিস্তান : ১ম ইনিংস ২৪০। অস্ট্রেলিয়া : ১ম ইনিংস ৩১২/১ (ওয়ার্নার ১৫১*, বার্নস ৯৭, লাবুশেন ৫৫*; ইয়াসির ১/১০১)।