যে নির্যাতন করেছে তা বলে শেষ করা যাবে না: সৌদি ফেরত হোসনা|183536|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৮ নভেম্বর, ২০১৯ ১৮:০৬
যে নির্যাতন করেছে তা বলে শেষ করা যাবে না: সৌদি ফেরত হোসনা
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

যে নির্যাতন করেছে তা বলে শেষ করা যাবে না: সৌদি ফেরত হোসনা

সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার  হোসনা আক্তার (২৪) অবশেষে দেশে ফিরেছেন। দেশে ফিরে তিনি বলেছেন, কিছু উপার্জনের আশায় সৌদি আরব গিয়ে যে নির্যাতনের শিকার হয়েছি তা বলে শেষ করা যাবে না।

বুধবার রাতে সৌদি এয়ারলাইনসের বিমানে রিয়াদ হয়ে ঢাকা বিমানবন্দরে পৌঁছান তিনি। হোসনা আজমিরিগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও ইউনিয়নের আনন্দপুর গ্রামের শফিউল্লার স্ত্রী।

তিনি জানান, তিন সপ্তাহ আগে সৌদি আরব যান মাসিক ২২ হাজার টাকা বেতনে। নাজরান এলাকায় একটি বাড়িতে তিনি গৃহকর্মীর চাকুর করতেন।

তার স্বামী বলেন, আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে ২০/২২ দিন আগে গৃহকর্মীর কাজ নিয়ে ‘আরব ওয়ার্ল্ড  ডিস্ট্রিবিউশন’ নামের একটি এজেন্সির মাধ্যমে সৌদি আরব যান তার স্ত্রী। সেখানে গৃহকর্তার নির্যাতনের কথা জানিয়ে কয়েক দিন আগে তার (স্বামী) কাছে একটি ভিডিও বার্তা পাঠান। কোনো উপায় না দেখে তিনি ভিডিওটি তার এক ভাইয়ের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করান। যা ফেসবুকে  ভাইরাল হয়।

তিনি বলেন, ভিডিওটি পাওয়ার পর ঢাকায়  ‘আরব ওয়ার্ল্ড ডিস্ট্রিবিউশন’ এজেন্সিতে গিয়ে এসব কথা বললে এজেন্সির লোকজন হোসনাকে ফিরিয়ে আনতে তার কাছে এক লাখ টাকা দাবি করেন। পরবর্তীতে তিনি গত ২৪ নভেম্বর  বিভিন্ন গণমাধ্যম ও  ব্র্যাকের সহায়তা চেয়ে আবেদন করেন।

জানা গেছে এরপর বিষয়টি সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের নজরে পড়ে।

হোসনাকে স্বামী আরো জানান, তাকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সার্বিক সহায়তায় সিদ্ধান্ত নেয় ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম। পরবর্তীতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সৌদি আরবের জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেটের  শ্রম কল্যাণ উইংয়ের মাধ্যমে তাকে উদ্ধারে নাজরান পুলিশকে অবহিত করে। সেখান থেকে তাকে সেফ হাউসে এনে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা নেয়া হয়।

ঢাকা বিমান বন্দর থেকে হোসনা বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জ এসে শহরের উমেদনগর এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

তিনি বলেন, ‘বাড়িতে কাজের কথা বলে আমাকে সৌদি আরবে নিয়ে যে শারীরিক নির্যাতন করেছে তারা তা বলে শেষ করা যাবে না’।