পুঁজিবাজারে সপ্তাহের শেষ দিন বাড়ল সূচক|187991|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০
পুঁজিবাজারে সপ্তাহের শেষ দিন বাড়ল সূচক
নিজস্ব প্রতিবেদক

পুঁজিবাজারে সপ্তাহের  শেষ দিন বাড়ল সূচক

টানা দরপতনের পর সপ্তাহের শেষ দিন গতকাল বৃহস্পতিবার পুঁজিবাজারে মূল্যসূচকে কিছুটা পয়েন্ট যোগ হয়েছে। এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রায় ৫৯ শতাংশ শেয়ারের দর বাড়ায় প্রধান মূল্যসূচকটি (ডিএসইএক্স) বেড়েছে ৩৮ পয়েন্ট। এর আগে তিন কার্যদিবসে ৯৬ পয়েন্ট হারায় সূচকটি। আগের দিনের তুলনায় গতকাল লেনদেন পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হলেও তা ৩০০ কোটি টাকার নিচেই ছিল।

বিদেশিদের পাশাপাশি দেশের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের হিসাব বছর শেষ হওয়ার পর্যায়ে শেয়ার বিক্রির চাপ বাড়ায় ডিসেম্বরের শুরু থেকেই দরপতনের ধারা দেখা দেয় পুঁজিবাজারে। চলতি বছরের শুরু থেকেই বাজারে দরপতন দেখা দেয়। এতে প্রধান মূল্যসূচকটি প্রায় ১৮ শতাংশ হারায়। চলতি নভেম্বরে কিছুটা স্থিতিশীলতা থাকলেও ডিসেম্বরে দরপতন শুরু হয়। এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ভীতি ছড়িয়ে পড়ে। ফলে বিক্রিচাপ বেড়ে গিয়ে ১৮ ডিসেম্বর

পর্যন্ত ডিএসইর প্রধান সূচকটি ৬ দশমিক ৬ শতাংশ পয়েন্ট হারায়। টানা পতনের পর গতকালের সূচক বৃদ্ধি বিনিয়োগকারীদের জন্য কিছুটা স্বস্তি নিয়ে এসেছে।

পর্যালোচনায় দেখা যায়, গতকাল কাগজ ও ভ্রমণ খাত ছাড়া অন্য খাতগুলোর বাজার মূলধন বেড়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি দর বেড়েছে জীবন বীমা কোম্পানির। এদিন খাতটির বাজার মূলধন বেড়েছে ৩ দশমিক ৭ শতাংশ। তবে সূচক বাড়াতে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখে ব্যাংক, জ্বালানি, এনবিএফআই, প্রকৌশল ও বস্ত্র খাতের কোম্পানিগুলো। এদিন এসব খাতের বাজার মূলধন দশমিক ৮ থেকে ১ দশমিক ৭ শতাংশ বেড়েছে।

একক কোম্পানি হিসেবে গতকাল সূচক বাড়াতে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে গ্রামীণফোন, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি, রেনেটা, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, অলিম্পিক, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যংক, শাহজালাল ব্যাংক, ডাচ্-বাংলা ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক ও সিঙ্গার বাংলাদেশ। গতকাল ডিএসইতে কেনাবেচা হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ২০৬টি কোম্পানির শেয়ারদর বাড়ায় প্রধান মূল্যসূচকটি ৪৪৫৬ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। কেনাবেচা হয়েছে ২৭৬ কোটি টাকার সিকিউরিটিজের।