মজনু মিয়া যেন ‘জজ মিয়া কাহিনী’র মতো না হয়: ডা. জাফরুল্লাহ|192003|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৯ জানুয়ারি, ২০২০ ১৫:১০
মজনু মিয়া যেন ‘জজ মিয়া কাহিনী’র মতো না হয়: ডা. জাফরুল্লাহ
নিজস্ব প্রতিবেদক

মজনু মিয়া যেন ‘জজ মিয়া কাহিনী’র মতো না হয়: ডা. জাফরুল্লাহ

বর্তমান সরকা‌রের উদ্দেশ্যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢা‌বি) শিক্ষার্থী ধর্ষ‌ণের অভিযোগে একজন মজনু মিয়া‌কে গ্রেপ্তার করা হ‌য়ে‌ছে। কিন্তু এই মজনু মিয়া যেন সেই ‘জজ মিয়া কাহিনী’র মতো না হয়।’

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গণতন্ত্র উদ্ধার আন্দোলনের আয়োজনে ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণের প্রতিবাদে এক মানববন্ধনে তিনি এ কথা বলেন।

উল্লেখ্য, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলার ১০ মাস পর রাজধানী থেকে ‘জজ মিয়া’ নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)’র পক্ষ থেকে গণমাধ্যমকে জানানো হয়, তারা ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা মামলার রহস্য উদ্‌ঘাটন করেছে।

বলা হয়, জজ মিয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। অথচ সেই জবানবন্দিও ছিল সিআইডির সাজানো নাটক। ২০০৮ সালের ১১ জুন গ্রেনেড হামলা মামলার অভিযোগপত্র থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় চার দলীয় জোট সরকারের আমলে গ্রেপ্তার হওয়া জজ মিয়াকে। যিনি কিনা কোনোদিন গ্রেনেড চোখেই দেখেননি। ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গাড়ি চালক জজ মিয়া স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে সহজ-সরল জীবনযাপন করেন।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘ঢাবি শিক্ষার্থী ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার মজনুও যেন শেষ পর্যন্ত জজ মিয়া কা‌হিনীর মতো হয় তাহ‌লে দে‌শে যে হা‌রে ধর্ষণ বাড়ছে তার সমাধান আর কখনোই হ‌বে না।’

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের পাশে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। দেশে এত গোয়েন্দা সংস্থা, তারা কী করে? তারা কি শুধু প্রধানমন্ত্রীকে পাহারা দেওয়ার দায়িত্ব পালন করে? জনগণকে পাহারা দেওয়ার দায়িত্ব কি তাদের নাই?’

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার তো হচ্ছে বাংলাদেশের মা-বোনেরা। গত বছর নির্বাচনের পরে একজন মা ধর্ষণের শিকার হয়েছিল। এখনো ঢাকায় নির্বাচন আমেজ চলছে। কীভাবে বলবো- এই নির্বাচনের পরে আর কেউ ধর্ষণ হবে না।’

এসব থেকে বাঁচতে হলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দাঁড়াতে হবে বলে জানান তিনি।

দেশের জনগণের উদ্দেশ্যে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণ হয় নাই, ধর্ষণ হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। ধর্ষণের শিকার হয়েছে মুক্তিযোদ্ধারা, দেশের জনগণ। তাই আর কতকাল ধৈর্য ধরে থাকবেন। এসব থেকে বাঁচতে হলে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ছাড়া উপায় নাই। এর থেকে যদি মুক্তি না পান তাহলে দেশ মাফিয়াদের নিয়ন্ত্রণে চলবে।’

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না ও গণতন্ত্র উদ্ধার আন্দোলনের নেতাকর্মীরা।