'ওই রকমের দুর্বল মানুষ একা একা ধর্ষণ করতে পারে?'|192411|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১১ জানুয়ারি, ২০২০ ২১:৫১
'ওই রকমের দুর্বল মানুষ একা একা ধর্ষণ করতে পারে?'
নিজস্ব প্রতিবেদক

'ওই রকমের দুর্বল মানুষ একা একা ধর্ষণ করতে পারে?'

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার ‘ধর্ষক’ মজনুকে নিয়ে সন্দেহের কথা বললেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

মান্না প্রশ্ন করেন, ওই রকমের একটা দুর্বল শরীরের মানুষ একটা মেয়েকে ধরে একা একা ধর্ষণ করতে পারে? আসলে এটা কি সম্ভব?

তাকে ধরে ‘কাহিনী সাজানো হচ্ছে’ অভিযোগ করে তিনি বলেছেন, তারা আর কোনো ‘জজ মিয়া’ নাটক দেখতে চান না। 
শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্যোগে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে এক মানববন্ধনে এসব বলেন মাহমুদুর রহমান মান্না।

তিনি বলেন, 'মানুষের কাছে প্রশ্ন উঠেছে, যে ধর্ষণ করল তাকে গ্রেপ্তারের পর তার ছবি দেখে, চেহারা দেখে, সামনে দুইটা দাঁত নাই- এ রকমের একটা বিদঘুটে অবস্থা- এই লোকটাই কি সত্যি ধর্ষক? সোশাল মিডিয়াতে প্রশ্ন ভেসে বেড়াচ্ছে। সাধারণ যে কাউকে জিজ্ঞাসা করেন, ওই রকমের একটা দুর্বল শরীরের মানুষ একটা মেয়েকে ধরে একা একা ধর্ষণ করতে পারে? কোনো মেয়ে যদি মনে করে আমি ধর্ষণ করতে দেব না, একা কোনো মানুষ, আসলে এটা কি সম্ভব?'

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক মেয়েটির সঙ্গে কথা বলে তার ধর্ষককে শনাক্তের খবর প্রকাশ করেছেন জানিয়ে মান্না প্রশ্ন করেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষক বলছেন, আমি নিজে গেলাম, দেখলাম, কথা বললাম, সে তো বলছে যে ওকে সে শনাক্ত করেছে, সে চেনে। আমি বলি ওই অধ্যাপক কে? উনি কোন দল করেন? কোন দলের সাথে যুক্ত আছেন? দল যদি করেন মিথ্যুকদের দল ওটা। যারা গত বছরের ৩০ ডিসেম্বরের ভোট আগের রাতে করে ফেলতে পারে, তাদের দেওয়া সাক্ষী আমি নিতে যাব কেন? শুধু আপনার (সরকারি দল) শিক্ষক দেখা করতে পারল কেন, অন্য দলের কোনো শিক্ষক, ছাত্র, ডাকসুর ভিপি কেন যেতে পারল না? তারপরে এখন কাহিনী বানাচ্ছেন। 

তিনি বলেন, এজন্য বলছি, আমরা নিরাপদ নই। এরা যে কোনো নাটক কখন কী কারণে সাজাচ্ছে, এটা খুবই একটা চিন্তার বিষয়। কোনো জজ মিয়া নাটক দেখতে চাই না।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, যেই রাত্রে ওই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে কাক-পক্ষী জানেনি। সেই মেয়েটি বাইরে এসে রিকশায় চড়ে তখন তার গন্তব্যে যাচ্ছে পত্রিকায় পড়েছি। সেই সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে গেইটগুলোতে একটার পর একটা ছাত্রলীগের জমায়েত কীভাবে হল? যে-ই ছাত্রলীগ গত ১৫-২০ দিন ধরে ক্যাম্পাসে দেখা যাচ্ছে না তারা পরদিন সকাল বেলা ধর্ষণের প্রতিবাদে মিছিল বের করল, এত বড় সমাজ হিতৈশী ছাত্রলীগকে গত কয়েক বছর ধরে দেখছি না। তাই আমাদের প্রশ্ন।

ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে কলঙ্কিত করবার যে ষড়যন্ত্র করছেন, ছাত্র রাজনীতি র্ধ্বস করবার ষড়যন্ত্র করছেন, ডাকসুর ভিপিসহ সমস্ত ছাত্র নেতাদের যে রকম নির্দয়ভাবে প্রহার করেছেন- সেটা ধামাচাপা দেবার জন্য আবার নতুন নতুন ব্যবস্থা যদি করেন সেটাও মানা হবে না।