বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থীকে মারধর, ‘হত্যার হুমকি’|193237|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৫ জানুয়ারি, ২০২০ ২২:০৬
বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থীকে মারধর, ‘হত্যার হুমকি’
নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থীকে মারধর, ‘হত্যার হুমকি’

রাজধানীর উত্তর সিটি করপোরেশনের ১ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির মনোনিত কাউন্সিলর প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান সেগুনকে গুলি করে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে একই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

বুধবার রাতে দেশ রূপান্তরকে এ অভিযোগ জানান কাউন্সিলর প্রার্থী সেগুন নিজেই। হুমকি দেওয়ার বিষয়টি তিনি ঢাকা উত্তর বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালকে জানিয়েছেন বলে জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন মনিটরিং কমিটির সদস্য ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ শাহজাহান দেশ রূপান্তরকে বলেন, কাউন্সিলর প্রার্থীসহ সঙ্গে থাকা তার কর্মী-সমর্থকদের গুরুতর আহত করা হয়েছে। তাদের উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হচ্ছে।

সেগুন বলেন, বিকাল আনুমানিক ৪টার দিকে আবদুল্লাহপুর খন্দকার সিএনজি পাম্প থেকে তিনি নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন। এরপর উত্তরা ৯ নম্বর সেক্টরের শেষ মাথার দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় পাশেই ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ মনোনিত কাউন্সিলর প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের নির্বাচনী অফিস থেকে ৫০-৬০ জনের একটি দল কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাগ্নের নেতৃত্বে হাতে লাঠি, রড ও হকিস্টিক দিয়ে এলোপাথাড়ি মারধর করতে থাকে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, এতে তিনিসহ আটজন আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় চারজনকে উত্তরার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহতরা হলেন স্থানীয় যুবদলের নেতা বকুল হোসেন, ঢাকা উত্তর ছাত্রদলের সদস্য রাজন মুহাম্মদ রাজ, ছাত্রদলের সদস্য রবিউল আউয়াল ভূইয়া, সাইফুল ইসলাম সাইফ ও সোহেব আহমদসহ আরো অন্তত চারজন।

তিনি বলেন, তার প্রচারে অংশ নিতে আসা ছাত্রদলের চারজনকে তারা মারতে মারতে এক কিলোমিটার দূরে নিয়ে যায়। পরে তারা অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে গেলে তাদের ছেড়ে দেয়। এ সময় লাঠি দিয়ে আমাকেও পেটানো হয়। একইসঙ্গে আমাকে গুলি করে মারার হুমকি দেওয়া হয় এবং নির্বাচনী প্রচার চালাতে নিষেধ করা হয়।