সিরিজ সমতায় ফিরল ভারত|193733|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০
সিরিজ সমতায় ফিরল ভারত
ক্রীড়া ডেস্ক

সিরিজ সমতায় ফিরল ভারত

সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৩৭ রানে হারিয়ে তিন ম্যাচ সিরিজে সমতা এনেছে ভারত। রাজকোটে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে আগে ব্যাট করে ৬ উইকেটে ৩৪০ রানের বিশাল স্কোর গড়ে ভারত। জবাবে অস্ট্রেলিয়া একটা সময় পর্যন্ত ম্যাচে থাকলেও শেষ পর্যন্ত রান-তাড়ায় ব্যর্থ। শেষ পর্যন্ত ৩০৪ রানে অলআউট হয় অজিরা। সুবাদে ১-১ সমতা আনল বিরাট কোহলির দল। ১৯ জানুয়ারি সিরিজের শেষ ম্যাচ বেঙ্গালুরুতে। 

সিরিজের প্রথম ম্যাচে ২৫৫ রানে থামতে হয় ভারতকে। যে রান বিনা উইকেটে টপকে যায় অস্ট্রেলিয়া। এ ম্যাচে না জিতলে সিরিজ হাতছাড়া হবে এমন বাঁচা-মরার লড়াইয়ে টস হেরে আবারও ব্যাটিংয়ে নামতে হয় স্বাগতিকদের। গত ম্যাচের মতো এবার বাজে শুরু হয়নি। দুই ওপেনার মিলে দলকে হাফসেঞ্চুরি ছাড়ানো উদ্বোধনী জুটি এনে দেন। দলীয় ৮১ রানে ৪৪ বলে ৪২ করে ফেরেন হিটম্যান রোহিত শর্মা। এই সিরিজে দুটি ম্যাচেই বড় কিছু করতে ব্যর্থ হন এই ব্যাটসম্যান। তবে ৪২ রান করার মধ্য দিয়ে একটি রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন রোহিত। ওপেনার হিসেবে দ্রুততম ৭ হাজার রানের মালিক এখন তিনি। ক্যারিয়ারে ২২৩ ওয়ানডেতে ৮ হাজার ৯৯৬ রান করেছেন রোহিত। আর ৪ রান করলে একসঙ্গে দুটি মাইলফলক (৯ হাজার রান) হয়ে যেত রোহিতের। ওপেনার হিসেবে ৭ হাজার রান করতে রোহিতের লেগেছে ১৩৭ ইনিংস। এতদিন রেকর্ডটি হাশিম আমলার দখলে ছিল। আমলা ১৪৭ ইনিংসে ওই রান করেছেন।

রোহিত ফিরলেও দলের বেশি ক্ষতি হতে দেননি ধাওয়ান ও কোহলি। দুজনে মিলে ১০৩ রানের জুটি গড়েন দ্বিতীয় উইকেটে। ধাওয়ান মাত্র ৪ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেন। ৯০ বলে ৯৬ করেন এই ওপেনার। এছাড়া কোহলি ৭৬ বলে ৭৮ রান করে ফেরেন। টানা দ্বিতীয় ম্যাচে তার উইকেট তুলে  নেন অস্ট্রেলিয়ান স্পিনার অ্যাডাম জাম্পা। কোহলির আগে শ্রেয়ার আইয়ার এবং পরে মানিশ পান্ডেকে দ্রুত ফিরিয়ে দিলে ম্যাচে ফেরে অজিরা। তখন মনে হচ্ছিল খুব বেশিদূর যেতে পারবে না ভারত। কিন্তু লোকেশ রাহুল দুর্দান্ত খেলে দলকে বড় সংগ্রহ এনে দেন।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে গত ম্যাচের মতো শুরু হয়নি অস্ট্রেলিয়ার। ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ১২ বলে ১৫ রান করে বিদায় নেন। তার শটে এক হাতে দুর্দান্ত ক্যাচ ধরেন মানিশ পান্ডে। ভাগ্য যখন সঙ্গে নেই তখনই বোঝা যাচ্ছিল আজকের দিনটি অস্ট্রেলিয়ার নয়। তবুও স্টিভেন স্মিথ ও অ্যারন ফিঞ্চ ৬২ রানের জুটি গড়েন। ফিঞ্চ ৩৩ রানে ফিরলে মারনাস লাবুশেনকে নিয়ে ইনিংসের সবচেয়ে বড় জুটি গড়েন স্মিথ। ৯৬ রান করে বিচ্ছিন্ন হন দুজন। ক্যারিয়ারের প্রথম ওয়ানডে ইনিংস খেলতে নামা লাবুশেন করেন ৪৭ বলে ৪৬। পরে অ্যালেক্স ক্যারেও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। মাত্র ১৮ করে ফিরেছেন। দুর্ভাগ্য স্মিথের, সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ২ রান দূরে থাকতে ফিরে যান। ৯৮ রানে স্মিথের বিদায়ের সঙ্গেই অস্ট্রেলিয়ার হার লেখা হয়ে যায়।