সরু রাস্তা তাই খাটিয়া নিতে পারল না স্বজনরা|194381|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ জানুয়ারি, ২০২০ ১৮:২৯
সরু রাস্তা তাই খাটিয়া নিতে পারল না স্বজনরা
চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) সংবাদদাতা

সরু রাস্তা তাই খাটিয়া নিতে পারল না স্বজনরা

১৪টি পরিবারের বসবাস সেখানে। আছে গ্যাস ও বিদ্যুতের লাইন, তবে সেখানে যাতায়াতের রাস্তা নেই বললেই চলে। সরু রাস্তা নিয়ে কোন রকমে একজন মানুষ যাতায়াত করতে পারলেও কেউ মারা গেলে খাটিয়া বের করার উপায় থাকে না।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আলকরা ইউনিয়নের গোলাইকরা গ্রামের উত্তর পাড়ায় মহাসড়ক থেকে দুইশ মিটার পূর্ব দিকের মনির সওদাগর বাড়ির ১৪ পরিবার এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করলেও স্থানীয় প্রভাবশালীরা বিষয়টি দেখেও যেন না দেখার ভান করেন বলে অভিযোগ করেন তারা।

ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর অভিযোগ, সেখানে ৮০ জন ভোটারের বাস। প্রতিবারই নির্বাচনের সময় এমপি, চেয়ারম্যান, মেম্বার প্রার্থীরা রাস্তার সমস্যার সমাধান করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে ভোট আদায় করেন। কিন্তু নির্বাচিত হওয়ার পর রাস্তা নিয়ে তাদের সহযোগিতা পাওয়া যায় না।

সেখানে বসবাসরত পরিবারগুলোর সদস্যদের কাজের জন্য বাসার বাইরে বের হওয়া ছাড়াও ছেলেমেয়েদের পড়ালেখার জন্য স্কুল-কলেজের জন্যও ঘর থেকে বের হতে হয়। কিন্তু চলাচলের রাস্তা না থাকায় প্রতিনিয়তই বিড়ম্বনায় পড়া লাগে।

মঙ্গলবার সেখানে বসবাসরত সামছুন নাহার নামে এক বৃদ্ধার মৃত্যুতে তার লাশ বহনকারী খাটিয়া বের করা নিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েন স্বজনরা। পরে, অন্যের জমির ওপর দিয়ে খাটিয়া বের করতে হয় তাদের।

ভুক্তভোগী আবদুর রাজ্জাক, আবদুল মালেক, ফজলুল হক, জাহাঙ্গীর হোসেন, আলমগীর হোসেন, মফিজুর রহমানসহ পাশের বাড়ির লোকজন অভিযোগ করে বলেন, একটি জায়গা ক্রয় করাকে কেন্দ্র করে বিরোধের জের ধরে এবাদুল হক, সামছুল হক, একরামুল হক ও ছালেহ আহমদ গং পর্যাপ্ত জায়গা না রেখে বাড়ি নির্মাণ করে দেয়াল তুলে দেওয়ায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। তাদেরকে অনুরোধ করলেও তারা সাড়া দেয়নি।

ভুক্তভোগীরা বলেন, ওই সরু জায়গা দিয়ে ছোট ছেলে-মেয়েরা হাঁটতে ভয় পায়। এমনকি শারীরিকভাবে একটু একটু মোটা হলেও ওই পথ দিয়ে চলাচলে সমস্যা হয়।

এদিকে সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে এই প্রতিবেদকে এবাদুল হক অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করতে থাকেন। অভিযোগ সম্পর্কে তার মন্তব্য নেওয়ার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।

আলকরা ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক হেলাল বলেন, রাস্তাটি আরও চওড়া করা পেছনের বাড়ির লোকজনের জন্য অতীব জরুরি। আমি উভয় পক্ষের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা করে যাচ্ছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সাইফুর রহমান বলেন, ভুক্তভোগীরা দেওয়ানি মামলা করলে আদালত রাস্তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিবে।