প্রশান্তসহ ২০ জনের সম্পদ জব্দের নির্দেশ হাইকোর্টের|194474|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২২ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০
প্রশান্তসহ ২০ জনের সম্পদ জব্দের নির্দেশ হাইকোর্টের
নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রশান্তসহ ২০ জনের সম্পদ জব্দের নির্দেশ হাইকোর্টের

এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেডের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদার, তার মা, ভাই ও স্ত্রীসহ ২০ জনের ব্যক্তিগত সম্পদ, ব্যাংক হিসাব ও পাসপোর্ট জব্দের নির্দেশ দিয়েছে উচ্চ আদালত। আর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আর্থিক কোম্পানি ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের স্বাধীন পরিচালক ও চেয়ারম্যান হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদকে নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। ওই প্রতিষ্ঠানে দুই বিনিয়োগকারীর অর্থ ফেরত-সংক্রান্ত আবেদনের ওপর শুনানি নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতি মোহাম্মদ খুরশিদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব আদেশ দেয়। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী শাহরিয়ার কবির। ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মেহেদী হাসান চৌধুরী ও মাহফুজুর রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আনোয়ারা শাহজাহান ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আক্তারুজ্জামান।

প্রশান্ত হালদার ছাড়া আরও যাদের বিষয়ে আদেশ হয়েছে তারা হলেন ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের এমডি এম নুরুল আলম, পরিচালক জহিরুল আলম, এমএ হাশেম, নাসিম আনোয়ার, বাসুদেব ব্যানার্জি, পাপিয়া ব্যানার্জি, মোমতাজ বেগম, নওশেরুল ইসলাম, আনোয়ারুল কবির, প্রকৌশলী নুরুজ্জামান, আবুল হাসেম, মো. রাশেদুল হক, প্রশান্ত কুমার হালদারের মা লীলাবতী হালদার, স্ত্রী সুস্মিতা সাহা, ভাই প্রীতিশ কুমার হালদার, কাকাতো ভাই অমিতাভ অধিকারী, অভিজিৎ অধিকারী, ব্যাংক এশিয়ার সাবেক পরিচালক ইরফান উদ্দিন আহমেদ ও প্রশান্তর বন্ধু উজ্জ্বল কুমার নন্দী।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আনোয়ারা শাহজাহান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের চেয়ারম্যান পদে গত রবিবার হাইকোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত (সুয়োমোটো) হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের কাছে নাম চেয়েছিলেন। এরপর আলোচনা সাপেক্ষে খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদকে ওই পদে নিয়োগ দিতে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।’ তিনি বলেন, ‘প্রশান্ত হালদারসহ ২০ জনের ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাব, সম্পদ জব্দের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি তারা যাতে দেশের বাইরে পালিয়ে যেতে না পারে সেজন্য তাদের পাসপোর্টও জব্দের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আর কোম্পানি আগে যেভাবে চলছিল সেভাবেই চলবে।’

আইনজীবীরা জানান, প্রশান্ত কুমার হালদার প্রথমে রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও পরে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের এমডি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। দুই প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালনকালে ব্যাংকবহির্ভূত আরও চারটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান নিজ কর্র্তৃত্বে ও নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণের নামে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগ উঠে প্রশান্ত ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে। এর একটি ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেড। অবৈধ ব্যবসা ও কার্যক্রমের মাধ্যমে পৌনে ৩০০ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে প্রশান্ত কুমার হালদারের বিরুদ্ধে গত ৮ জানুয়ারি মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বর্তমানে তিনি পলাতক।