আজ জকোভিচ-ফেদেরার সেমিফাইনাল|195983|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০
আজ জকোভিচ-ফেদেরার সেমিফাইনাল
ক্রীড়া ডেস্ক

আজ জকোভিচ-ফেদেরার সেমিফাইনাল

আজ যেই জিতুক, জকোভিচ কিংবা ফেদেরার পুরুষ টেনিসের আরেক পুরোধা রাফায়েল নাদালের সঙ্গে ফাইনাল হতো অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের। কিন্তু ডমিনিক তিম ভেবেছিলেন ভিন্ন কিছু। ২০১৮-১৯-এ দুবার ফ্রেঞ্চ ওপেনের ফাইনালে উঠেও যেটা পারেননি নাদালের সঙ্গে, সেটাই করলেন কাল। চার সেটের এক রোমাঞ্চকর লড়াই জিতে প্রতিশোধ নিলেন এই অস্ট্রিয়ান।

গতকাল মেলবোর্ন পার্কে শেষ কোয়ার্টার ফাইনালটি স্থায়ী হয় ৪ ঘণ্টা ১০ মিনিট। প্রথম দুই সেট টাইব্রেকে গড়ালে ৭-৩, ৭-৪-এ জিতে নেন তিম। পরের সেটটাও যখন তিনিই জিততে যাচ্ছেন মনে হচ্চিল, তখন তার সার্ভিস ব্রেক করে ৫-৫-এ সমতা আনেন ২০ গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা জয়ী স্প্যানিয়ার্ড। কিন্তু পরের সেটটাও গড়ায় টাইব্রেকে। সেখানে ৭-৬ পয়েন্টে জিতে পঞ্চম বড় কোনো টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেন ২৬ বছর বয়সী তিম। টমাস মুস্টারের পর সর্বোচ্চ র‌্যাংকড (৫ম) টেনিস খেলোয়াড় তিমকে বলা হচ্ছে নতুন নাদাল হিসেবে। তার সেমির প্রতিপক্ষ জার্মানির আলেকজান্ডার জভেরেভ গতকাল তৃতীয় কোয়ার্টার ফাইনাল জিতেছেন চার সেটের ম্যাচ খেলে। ২০১৪’র অস্ট্রেলিয়ান ওপেন চ্যাম্পিয়ন স্টান ওয়াওরিঙ্কাকে হারিয়েছেন তিনি ১-৬, ৬-৩, ৬-৪, ৬-২ গেমে।

আজ আরেকটি ধ্রুপদি লড়াই?

জকোভিচ-ফেদেরার লড়াইকে বলা হয় টেনিস ইতিহাসের অন্যতম ধ্রুপদি লড়াই। গত জুলাইয়ে উইম্বলডন ফাইনালে শ্বাসরুদ্ধকর তেমনই এক লড়াই এখনো টেনিস ভক্তদের গায়ে কাঁটা দেয়। প্রায় ৫ ঘণ্টার দুর্দান্ত সেই লড়াইয়ে সেদিন জিতেছিলেন জকোভিচ। কিন্তু শেষ সেটে ম্যাচ শেষ না হওয়ার রোমাঞ্চ ভুলে যাওয়ার নয়। গ্র্যান্ড স্ল্যামের হিসাবে সেই ফাইনালের পর আজ অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের সেমিফাইনালে প্রথম মুখোমুখি হচ্ছেন তারা দুজন। আরেকটি সম্ভাব্য শ্বাসরুদ্ধকর লড়াইয়ের আগে অবশ্য নিজে থেকেই ব্যাকফুটে চলে গেলেন সার্বিয়ান তারকা, ‘এমন নয় যে আমি রজারের ওপর দাপট ধরে রেখেছি। হতে পারে গ্র্যান্ড স্ল্যামে তার ওপর আমার সাফল্য বেশি। কিন্তু রজার রজার-ই। একজন সেরা যোদ্ধা। অবশ্যই আমি তাকে অনেক শ্রদ্ধ করি।’

২০০৬ থেকে ৪৯ বার লড়াইয়ে নেমেছিলেন এ দুজন। টেনিসে ছোট হলেও জয়ের হিসাবে ফেদেরারকে ছাড়িয়ে গেছেন জকোভিচ। ফেদেরারের ২৩ জয়ের বিপরীতে এই সার্বিয়ান জিতেছেন ২৬ লড়াই। আজ জয় দিয়ে দ্বৈরথের হাফসেঞ্চুরি কে রাঙাবেন সেটাই দেখার। গত নভেম্বরে এটিপি ফাইনালে দুজনের সর্বশেষ দেখায় অবশ্য জিতেছিলেন ফেদেরার। কিন্তু গ্র্যান্ড স্ল্যামে জকোভিচের এগিয়ে থাকা ৩৮ বছর বয়সী ফেদেরারের চিন্তার কারণ হবে। আট বছর আগে উইম্বলডনে শেষবারের মতো গ্র্যান্ড স্ল্যামে ফেরেদারের কাছে হেরেছিলেন জকোভিচ। এরপর পাঁচবারের স্ল্যাম লড়াইয়ে সববারই শেষ হাসি জকোভিচের মুখে। আর বরাবরের মতে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের রাজা জকোভিচ এই আসরেও তুখোড় ফর্মে আছেন। ১৬ বারের স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন শেষ চারে উঠে আসতে পুরো টুর্নামেন্টে মাত্র একটি সেট হেরেছেন। এমনিতেই এই আসরে রেকর্ডের অভাব নেই জকোভিচের। একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে টানা তিনবার জিতেছেন এই শিরোপা। এছাড়া সর্বোচ্চ সাতবার জয়ের রেকর্ডটিও তার। এবারের শিরোপা দিয়ে নিজের রেকর্ডকেই আরও মজবুত করার পথে আছেন র‌্যাংকিংয়ে দ্বিতীয় এই তারকা।

বিপরীতে টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে উঠতে বেশ শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পড়তে হয়েছে ফেদেরারকে। তৃতীয় রাউন্ডে অস্ট্রেলিয়ান জন মিলম্যানের কাছে তো প্রায় হেরেই গিয়েছিলেন। পরে কোয়ার্টার ফাইনালে টেনেস স্যান্ডগ্রিনের বিপক্ষেও পাঁচ সেটের ম্যাচে কোনো রকমে জিতেছিলেন। আর এ দুই ম্যাচের উদাহরণ টেনেই জকোভিচ ফেদেরারকে এই বয়সেও ‘আনপ্রেডিক্টেবল’ বলছেন। র‌্যাংকিংয়ের দুই নম্বর খেলোয়াড় জকোভিচ জানান, ‘স্যান্ডগ্রিনের বিপক্ষে সে যা করল তা অসাধারণ। ওই ম্যাচে সেরা সময়ের ফেদেরারকে দেখেছি আমি। মানে, সে কখনই হাল ছেড়ে দেয় না। যখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময় আসে তখন সে তার সেরা টেনিসটা খেলে।’

এদিকে রেকর্ড ২১ বারের স্ল্যাম জয়ের প্রান্তে থাকা ফেদেরারও জকোভিচকে সমীহ করেই নামছেন কোর্টে। হার্ড কোর্টে নিজেদের ভালো করার রহস্য হিসেবে কোর্টের গতি ব্যবহার করায় পরদর্শিতার কথা বললেন তিনি। ফেদেরার জানান, ‘হতে পারে এই কন্ডিশনটা আমাদের খুব সাহায্য করে। আমরা দুজনই কোর্টের গতি ভালো বুঝি এবং ব্যবহার করতে পারি। এটা আমাদের ম্যাচে সাহায্য করে। আপনি যদি মৌসুমের শুরুটা দারুণভাবে করতে পারেন তবে বাকি টুর্নামেন্টগুলো সহজ হয়। এ কাজটাই নোভাক গত ১০ বছর ধরে করে আসছে। আমিও করেছি। তাই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে অবশ্যই সে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী।’ শেষ তিন ম্যাচে ১৪টি কঠিন সেট খেলে সেমিফাইনালে নামছেন ফেদেরার। কিন্তু নিজের মুখেই বললেন ক্লান্তি ধরেনি তারÑ ‘হ্যাঁ, কোয়ার্টারে একটু মেডিকেল টাইম আউট নিতে হয়েছে। কিন্তু সেটা সামান্য ব্যথা। পরিমিত ঘুম, বিশ্রাম শরীরকে বেশ চাঙ্গা করেছে। আমি এই মুহূর্তে বেশ ভালো অনুভব করছি।’ 

গত ১৪ মৌসুম ধরে এ দুই তারকাই নিজেদের দখলে রেখেছেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেন। জিতেছেন ১২ মৌসুমেই। আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জকোভিচ। তবে আগেরবার (২০১৮) জিতেছিলেন ফেদেরার। তাই এবার সেমিফাইনালে দুই সাম্প্রতিক চ্যাম্পিয়নের লড়াই জমবে বেশ।