চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর|196097|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩০ জানুয়ারি, ২০২০ ১৬:১২
চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
নিজস্ব প্রতিবেদক

চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

চাকরির পেছনে না ছুটে যুব সমাজকে নিজেদের মেধা ব্যবহার করে কর্মসংস্থান সৃষ্টির আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার চায় এই মুজিব বর্ষে দেশে কেউ বেকার থাকবে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার সকালে তার তেজগাঁওয়ের কার্যালয়ে (পিএমও) জাতীয় যুব পুরস্কার ২০১৯ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এ আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, শুধুমাত্র চাকরির মুখাপেক্ষী হয়ে বসে থাকলে চলবে না। তরুণদের মাঝে যে সুপ্ত শক্তি রয়েছে-একটা কিছু তৈরি করার, তার চিন্তা এবং মননকে বিকশিত করার, সেই কর্মদক্ষতাকে কাজে লাগাতে হবে। নিজে কাজ করবে এবং আরও দশ জনকে কাজের সুযোগ করে দেবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারুণ্যের শক্তি বাংলাদেশের অগ্রগতি’ এই বক্তব্যেই আমরা বিশ্বাস করি। কাজেই সেই লক্ষ্য নিয়েই যুব সমাজকে আরও কর্মক্ষম করে গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।

শেখ হাসিনা তরুণদের উদ্দেশ্যে বলেন, চাকরি না করে চাকরি দেব বা দিতে পারব- সেই সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। সেই চিন্তাটা মাথায় থাকতে হবে এবং আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে। আত্মমর্যাদাবোধ থাকতে হবে। সেটা থাকলে আমারতো মনে হয় বাংলাদেশে আর কেউ বেকার থাকবে না।

তিনি বলেন, আমাদের একটা লক্ষ্য হচ্ছে যে, এই মুজিব বর্ষকে ঘিরে বাংলাদেশে আর কেউ যেন বেকার না থাকে।

তিনি দু’টি ঘটনার উদাহরণ টেনে চাকরি না করলেই কাউকে বেকার ভাবার মন মানসিকতাও পরিবর্তনের জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আমাদের দেশের মানুষের মাথার মধ্যে ওই একটা জিনিস ঢুকে আছে, চাকরি ছাড়া যেন আর কিছুই করা যায় না। অথচ ফ্রিল্যান্সিং কাজ করে মাসে ২ থেকে ৩ লাখ পর্যন্ত টাকা আয় করা যায়।

‘লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং’ কর্মসূচির মাধ্যমে প্রশিক্ষণ নিয়ে প্রয়োজনে কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে নিজস্ব প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে এক একজন স্বাবলম্বী হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, অনলাইনে কাজ করেই এখন ঘরে বসেই মানুষ অনেক টাকা রোজগার করতে পারছে।

তিনি অনুষ্ঠানে ২২ জন যুবক আত্মকর্মসংস্থানের উদাহরণ সৃষ্টিকারী যুবক ও পাঁচ যুব সংগঠনের মধ্যে জাতীয় যুব পুরস্কার ২০১৯ তুলে দেন। ১৯৮৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৪৪৫ জন এই পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। যুব ও ক্রীড়া সচিব মো. আখতার হোসেন স্বাগত বক্তৃতা করেন। যুব ও ক্রীড়া অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আখতারুজ্জামান খান কবির মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।