প্রত্যেকটি জেলার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে: পানিসম্পদ উপমন্ত্রী|197927|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২২:৩৮
প্রত্যেকটি জেলার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে: পানিসম্পদ উপমন্ত্রী
গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রত্যেকটি জেলার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে: পানিসম্পদ উপমন্ত্রী

পানি সম্পদ উপ-মন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামিম এমপি বলেছেন, পানি সম্পদ মন্ত্রনালয় ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ের যৌথ উদ্যোগে সারা বাংলাদেশে উচ্ছেদ অভিযান শুরু কারা হয়েছে। প্রত্যেকটি জেলায় বুড়িগঙ্গার মতো সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে। অবৈধ নদী দখলকারী এবং খাল দখলকারী যেই হোক না কেন কারোরই কোন ছাড় নেই। অবৈধ দখলদার যারাই থাকুক সকলকেই উচ্ছেদের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এই প্রক্রিয়া সরাদেশে চলছে, গোপালগঞ্জেও চলছে, এই প্রক্রিয়া চলমান থাকবে।

শনিবার দুপুরে গোপালগঞ্জের পাচুড়িয়া-টুঙ্গিপাড়া খালের পারকুশলী নামক স্থানে চলমান  খনন কাজ পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

এনামুল হক শামিম আরো বলেন, এই খাল দিয়েই নৌকায় করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টুঙ্গিপাড়া খেকে গোপালগঞ্জ আসতেন। আমিও একবার ১৯৮৪ সালে এই খাল দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় গিয়ে জাতির জনকের মাজার জিয়ারত করেছিলাম। ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে জাতির জনকের স্মৃতি বিজড়িত এই খাল খনন ও তীর সংরক্ষন করে এর শোভা বর্ধন করে টুঙ্গিপাড়া থেকে গোপালগঞ্জের নদীপথ সচল করা হবে।

তিনি আরো বলেন, এই জেলার মানুষকে নদীভাঙ্গনের ও জলাবদ্ধতার হাত থেকে রক্ষার জন্য নৌপথ সচল করার জন্য গোপালগঞ্জের নদী/খাল খননে, পশ্চিম গোপালগঞ্জ সমৃদ্ধ পানি ব্যবস্থাপনা প্রকল্প, পাচুড়িয়া খাল খনন প্রকল্পসহ গোপালগঞ্জে ১১৬০ কোটি টাকার কাজ করা হবে।

এসময় পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মো. মাহফুজুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম ওয়াহেদ উদ্দিন চৌধুরী, তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুল হেকিম, গোপালগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বিশ্বজিৎ বৈদ্য, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইমদাদুল হক চৌধুরী, সাধারন সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাদিকুর রহমান খান উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বেলা ১১টায় উপ-মন্ত্রী টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করে শ্রদ্ধা জানান।