উন্নয়নশীল দেশের কাতারে আমরা প্রবেশ করেছি: প্রধানমন্ত্রী|198843|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৪:৩১
উন্নয়নশীল দেশের কাতারে আমরা প্রবেশ করেছি: প্রধানমন্ত্রী
মো. আমিনুল ইসলাম, গাজীপুর

উন্নয়নশীল দেশের কাতারে আমরা প্রবেশ করেছি: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলা গঠনের যে স্বপ্ন দেখিয়েছেন, জাতি সে স্বপ্ন পূরণের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়নশীল দেশের কাতারে আমরা প্রবেশ করেছি। সম্প্রতি বিশ্বের ৪১তম অর্থনীতির দেশ হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে বাংলাদেশ।

বৃহস্পতিবার সকালে গাজীপুরের সফিপুরে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৪০তম জাতীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দরবারে শান্তি, উন্নয়ন এবং দুর্যোগ মোকাবিলায় রোল মডেল হিসেবে সমাদৃত। গত এগারো বছরে আমাদের সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়নের ফলে সম্ভব হয়েছে। মাথাপিছু আয়, জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ও শিক্ষার হার বৃদ্ধি পেয়েছে। দারিদ্র্যের হার আগের তুলনায় অনেক নেমে এসেছে।

‘আমরা সবাই একযোগে কাজ করলে বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলাদেশ’ অচিরেই বাস্তবে রূপান্তরিত করতে পারব- এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস।’ বলেন প্রধানমন্ত্রী।

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার জন্মশতবর্ষকে স্মরণীয় করে রাখতে ২০২০-২০২১ সালকে ‘মুজিব বর্ষ’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। আমি জানতে পেরেছি বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীকে স্মরণীয় করে রাখতে ‘মুজিব বর্ষ’ উদ্‌যাপনের লক্ষ্যে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, জাতীয় সংকটময় ও জরুরি মুহূর্তে আপনাদের কর্মতৎপরতা এ বাহিনীকে সরকারের এক নির্ভরযোগ্যে অংশে পরিণত করেছে। জাতীয় নির্বাচনসহ বিভিন্ন নির্বাচনে দায়িত্বপালন সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, উগ্রবাদ ও মৌলবাদ নির্মূলে আপনাদের ভূমিকা অনস্বীকার্য।

এর আগে সকাল ১০টা ৪৮ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী একাডেমিতে এসে পৌঁছালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল কাজী শরীফ কায়কোবাদ তাকে স্বাগত জানান। পরে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের সালাম গ্রহণ ও খোলা জিপে করে কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন।

প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে সাহসিকতা ও সেবা এই দুই ক্ষেত্রে ৮টি ক্যাটাগরিতে ১৪৩জন আনসার সদস্যকে পদক প্রদান করেন। পরে তিনি আনসার সদস্যদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। আনসার-ভিডিপি সদস্যদের তৈরি বিভিন্ন হস্তশিল্পের স্টল ঘুরে দেখেন এবং ভূয়সী প্রশংসা করেন।