চীন থেকে ফল আমদানি বন্ধ রয়েছে: কৃষিমন্ত্রী|199851|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২১:৪০
চীন থেকে ফল আমদানি বন্ধ রয়েছে: কৃষিমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক

চীন থেকে ফল আমদানি বন্ধ রয়েছে: কৃষিমন্ত্রী

ফাইল ছবি

করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) কারণে চীন থেকে ফল আমদানি বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

মঙ্গলবার কৃষি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ফল রপ্তানিকারকদের সঙ্গে আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আগামী রমজানে চীন ব্যতীত অন্য সব দেশ থেকে ফল আমদানি করা হবে। তাই বাজারে ফলের কোনো সংকট সৃষ্টি হবে না। এই মুহূর্তে চীন থেকে ফল আমদানির জন্য আমদানিকারকদের নিরুৎসাহিত করা হবে।

এর আগে আলোচনা সভায় তিনি বলেন, দেশে যেসব ফল উৎপাদন হয়, সেসব ফলের আমদানি কমিয়ে উৎপাদন বৃদ্ধি ও রপ্তানির পথ বের করতে হবে। দেশে এখন অর্থকরী অপ্রচলিত বিদেশি ফসল-ফল উৎপন্ন হচ্ছে। বিদেশি ড্রাগন ফল উৎপাদন যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে, আর কয়েক বছর পরে চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানিতে যেতে হবে।

কৃষি সচিব মো. নাসিরুজ্জামান বলেন, দেশে নতুন নতুন জাতের আম, মাল্টা, কমলা, ড্রাগন ফলসহ বিদেশি জাতের ফলের আবাদ হচ্ছে। এক সময় সেপ্টেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত বিদেশি ফলের ওপর নির্ভরতা ছিল। এখন এই সময়ে দেশীয় ফলের সরবরাহ বাড়ছে। তাজা ও রাসায়নিকমুক্ত ফলে আগ্রহ বাড়ছে মানুষের।

বাংলাদেশ ফ্রেশ ফ্রুটস ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম বলেন, দেশের মানুষের ফল খাওয়ার প্রবণতা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। উৎপাদনও বৃদ্ধি পেয়েছে।

তিনি জানান, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত ফল দেশের মোট চাহিদার মাত্র ৩৫ ভাগ পূরণ করে যা দুই বছর আগেও ছিল ২৮ ভাগ। বাকিটা আমদানির মাধ্যমে পূরণ হয়। এ জন্য আমদানি করা ফলের চাহিদা বেশি।