পুলিশ কর্মকর্তার মেয়েকে পরীক্ষা হলে সুবিধা: কেন্দ্র সচিবকে অব্যাহতি|200428|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২২:৪৫
পুলিশ কর্মকর্তার মেয়েকে পরীক্ষা হলে সুবিধা: কেন্দ্র সচিবকে অব্যাহতি
চট্টগ্রাম ব্যুরো

পুলিশ কর্মকর্তার মেয়েকে পরীক্ষা হলে সুবিধা: কেন্দ্র সচিবকে অব্যাহতি

চট্টগ্রাম নগরীর এক পুলিশ কর্মকর্তার মেয়ে এসএসসির পরীক্ষা হলে বিশেষ সুবিধা দেওয়ার অভিযোগে কেন্দ্রসচিবকে অব্যাহতি দিয়েছে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে ঘটনা তদন্তের তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। 

শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ণ চন্দ্র নাথ ২১ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার রাতে দেশ রূপান্তরকে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. গিয়াস উদ্দিনের পরিবর্তে সহকারী কেন্দ্রসচিব মোকাম্মেল হোসেনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। 

অন্যদিকে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটিতে আছেন বিদ্যালয় পরিদর্শক বিপ্লব গাঙ্গুলী, বিদ্যালয় উপপরিদর্শক মো. আবুল বাশার ও সহপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. আলী আকবর।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ণ চন্দ্র নাথ দেশ রূপান্তরকে বলেন, কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। প্রতিবেদনের ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। 

তিনি জানান, নাম প্রকাশ না করা শর্তে অভিযোগ দেওয়া ওই অভিভাবক জানিয়েছেন, অতিরিক্ত ডিআইজি মর্যাদার ওই পুলিশ কর্মকর্তা সিএমপিতে কর্মরত। 

কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম নগরীর কাজেম আলী হাই স্কুলের যে কক্ষে ওই শিক্ষার্থীর পরীক্ষা চলে, সেখানে পর্যবেক্ষক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয় একই বিষয়ের শিক্ষককে। এ ছাড়া পরীক্ষা কেন্দ্রের ওই কক্ষে ঢুকে কিছুক্ষণ পর পর ছাত্রীর খোঁজখবর নেন পুলিশের একজন উপপরিদর্শক (এসআই)। ৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মোট নয়টি বিষয়ের পরীক্ষা এভাবেই দিয়ে গেছে চট্টগ্রাম নগর পুলিশের ওই কর্মকর্তার মেয়ে।

বৃহস্পতিবার নারায়ণ চন্দ্র নাথ এ বিষয়ে বলেন, ‘মৌখিক অভিযোগের পর চেয়ারম্যান স্যারের নির্দেশে পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে দেখি পরীক্ষা কক্ষে যে বিষয়ের পরীক্ষা সেই বিষয়ের শিক্ষক ওই কক্ষে পরীক্ষক হিসেবে ছিল। তখনই ব্যবস্থা নিয়ে তাদের চেঞ্জ করে দেওয়া হয়েছে।’

পুলিশ কর্মকর্তার মেয়ের বিশেষ সুবিধা পাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নাম প্রকাশ না করার শর্তে বুধবার এক অভিভাবক অভিযোগ করেন, ওই পরীক্ষার্থীর জন্য তার সন্তানের পরীক্ষা দিতে সমস্যা হচ্ছে। তার কাছ থেকে শুনে চেয়ারম্যান স্যারের সঙ্গে যোগযোগ করে ওই ছাত্রীর কক্ষ পরিবর্তন করে দিই। এ বিষয়ে কেন্দ্র সচিবকে সতর্ক করে দেওয়া হয় তখন।